Latest News

এই বান্ধবীর সঙ্গেই কি ডেটে গেছিলেন মেহুল! বেধড়ক মারের কালশিটে ফেরার ব্যবসায়ীর শরীরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বান্ধবীর সঙ্গে রোম্যান্টিক সফরে যাচ্ছিলেন মেহুল চোকসি। তবে অ্যান্টিগুয়া থেকে কিউবার পথে সেই যাত্রা খুব একটা সুখের হল না শেষমেশ। মাঝপথেই ডোমিনিকায় ধরা পড়েছেন কুখ্যাত হিরে ব্যবসায়ী। বন্দি হয়েছেন জেলে। কিন্তু এর পরেই তাঁর যে ছবি প্রকাশ্যে এসেছে, তা দেখে চমকে উঠেছেন অনেকে।

মেহুল চোকসির একাধিক ছবিতে দেখা গেছে, তাঁর চোখ ফুলে লাল। হাতে কালশিটে, গভীর ক্ষত। কোথাও কোথাও পুড়ে যাওয়ার দাগও রয়েছে। তবে সেই ছবিগুলি কবে, কোথায় তোলা, কীভাবেই বা প্রকাশ্যে এল, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

জানা গেছে, অ্যান্টিগুয়া থেকে নিছক ঘুরতে কিউবায় যাচ্ছিলেন না মেহুল চোকসি। তিনি আসলে পালাচ্ছিলেন সে দেশে। যেহেতু কিউবায় প্রত্যর্পণের কোনও আইন নেই, তাই আপাতত কিউবাতেই থেকে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিল‌েন তিনি। কিন্তু মাঝপথে ধরা পড়ে যান ডোমিনিকায়।

সে সময়ে তাঁর সঙ্গে ছিলেন বান্ধবী। হয়তো পালানোও যাতে যথেষ্ট রোম্যান্টিক ও আনন্দের হয়, সেই ভাবনাই ছিল চোকসির! সময়ও কাটাচ্ছিলেন তেমনই। কিউবা যাওয়ার পথে ডোমিনিকায় বান্ধবীর সঙ্গে নৌকা বিহারের সময় তিনি ধরা পড়েন। তবে তাঁর বান্ধবীও আটক হয়েছেন কিনা, তিনি কোন দেশের মহিলা তা স্পষ্ট করে কিছু জানা যায়নি।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রের দাবি, জেলবন্দি হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই আবার নাকি অসুস্থও হয়ে পড়েছেন চোকসি। সে জন্য তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে হাসপাতালে। তবে তাঁর কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে বলে জানা গেছে। আর কী কী অসুস্থতা রয়েছে শরীরে, তা এখনও জানা যায়নি। আপাতত পিএনবি কেলেঙ্কারির নায়ক, ৬২ বছরের চোকসিকে কড়া পাহারায় রাখা হয়েছে।

যদিও চোকসির অ্যান্টিগুয়ার আইনজীবী জাস্টিম সিমোন দাবি করেছেন, অপহরণ করা হয়েছিল কুখ্যাত হীরে ব্যবসায়ীকে চোকসিকে। তার পরে মারধর করা হয়েছে তাঁকে। তিনি এও বলেছেন, “চোকসিকে নিয়ে অনেক ভুয়ো খবর সংবাদমাধ্যমে পরিবেশন করা হচ্ছে। যা নিয়ে আমি খুবই চিন্তিত। তবে এক্ষেত্রে খবরটি সত্যি।”


অ্যান্টিগুয়া নিউজরুমের তরফে রবিবার একটি ছবি প্রকাশিত হয়েছিল। যেখানে দাবি করা হয়, ডোমিনিকার ডগলাস-চার্লস বিমানবন্দরে দাঁড়ানো প্রাইভেট জেট ভারত থেকে এসেছে। তাতে করে ভারত সরকার বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ আদালতের নথি পাঠিয়েছে বলে জানানো হয়। এর মাধ্যমে তারা দাবি করতে চাইছে, চোকসি সত্যিই একজন ফেরার।

গ্রেফতারির পরে ডোমিনিকার আদালত জানিয়ে দিয়েছে, বুধবার পর্যন্ত চোকসির প্রত্যর্পণ করা সম্ভব নয়। তবু ভারত থেকে আসা কাগজপত্র নিশ্চয় কোর্টে পেশ করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত বছর রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ৫০ জন ঋণখেলাপির একটি তালিকা প্রকাশ করে। যেখানে সবার উপরে মেহুলের নাম ছিল। অভিযোগ ওঠে, এই বিতর্কিত হিরে ব্যবসায়ী তাঁর একাধিক সংস্থার নামে বিপুল ঋণ নেন৷ এর আগে ২০১৭ সালেই তিনি অ্যান্টিগুয়ার নাগরিকত্ব নিয়েছিলেন। কিন্তু ধরা পড়ার পর সেদেশের সরকার ডোমিনিকান প্রশাসনকে জানিয়ে দেয়, চোকসিকে ভারতেই পাঠানো হোক। তাঁকে ফের অ্যন্টিগুয়ায় পাঠানোর দরকার নেই।

You might also like