Latest News

সিবিআইয়ের এফআইআর–এ প্রথম নামই দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রীর

দ্য ওয়াল ব্যুরো:‌ সিবিআইয়ের এফআইআর–এর ১৫ জনের তালিকায় প্রথম নামটিই আম আদমি পার্টির দু’‌নম্বর নেতা মণীশ সিসোদিয়ার (Manish Sisodia)। রাজ্যের আবগারি নীতি লঙ্ঘনের জন্য ওই এফআইআর হয়েছে তাঁর নামে। ১১ পাতার ওই নথিতে তালিকাভুক্ত অপরাধগুলি হল দুর্নীতি, অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র এবং অ্যাকাউন্ট জালিয়াতি।

দিল্লির আবগারি মন্ত্রী ও উপ মুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়া (Manish Sisodia) অবশ্য তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। আম আদমি পার্টির প্রধান এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও তার ডেপুটিকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন করেছেন।

এফআইআর-এ তিন অফিসারের নামও রয়েছে। প্রাক্তন আবগারি কমিশনার এ গোপীকৃষ্ণ, ডেপুটি কমিশনার আনন্দ তিওয়ারি এবং সহকারী কমিশনার পঙ্কজ ভাটনগর। সিবিআইয়ের অভিযোগ, মদ প্রস্তুতকারক সংস্থা এবং মধ্যস্বত্বভোগীরা আবগারি নীতির প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের অনিয়মে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন।

কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আরও দাবি, সিসোদিয়ার ঘনিষ্ঠ সহযোগী অমিত অরোরা, দীনেশ অরোরা এবং অর্জুন পান্ডে মদের লাইসেন্সের বিনিময়ে কমিশন নিতেন। যা ওই সরকারি অফিসারদের কাছে পৌঁছে দিতে হত।

এফআইআরে উল্লেখ করা হয়েছে, এক মদ ব্যবসায়ী দীনেশ অরোরা পরিচালিত একটি কোম্পানিকে ১ কোটি টাকা দিয়েছিলেন। ওই একই ব্যবসায়ী, ইন্ডোস্পিরিট্‌স–এর সমীর মহেন্দ্রু, ও অর্জুন পান্ডেকে ২ থেকে ৪ কোটি টাকা দিয়েছিলেন।

সিবিআই জানিয়েছে, দিল্লিতে কেন্দ্রের প্রতিনিধি লেফটেন্যান্ট গভর্নরের অনুমতি ছাড়া কাকে মদ বিক্রি করতে দেওয়া হবে, তা সিসোদিয়া ঠিক করতেন। এরজন্য একটি নতুন নীতিও চালু করেছিলেন নভেম্বর মাসে। তদন্তের পর ওই নীতি ৩০ জুলাই প্রত্যাহার করা হয়। সিবিআইয়ের এফআইআরটি লেফটেন্যান্ট গভর্নর ভি কে সাক্সেনার তথ্যের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। তিনিই দিল্লির মদ নীতিতে সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করেছিলেন।

আম আদমি পার্টির অভিযোগ, বিজেপি ২০২৪ সালের নির্বাচন নিয়ে চিন্তিত। কারণ নরেন্দ্র মোদীর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে প্রধান বিরোধী মুখ হিসেবে কেজরিওয়াল উঠে আসের জন্য তারা কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলিকে ব্যবহার করছে।

দিল্লিতে সিসোদিয়ার বাড়িতে সিবিআই হানায় পাঞ্জাবে আপ সরকারের ঘুম ছুটেছে কেন

You might also like