Latest News

Mamata Banerjee: ‘খালি নেগেটিভ আর নেগেটিভ! বাংলায় কি কিছুই ভাল নেই!’: মুখ্যমন্ত্রী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দু’বছর বাদে কলকাতায় বিশ্ব বঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলনের আয়োজন করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) সরকার। শিল্পে বিনিয়োগ টানা যে সম্মেলনের অন্যতম উদ্দেশ্য। অথচ সেই সম্মেলনের ঠিক আগে বগটুই, ঝালদা, মগরাহাট, হাঁসখালির ঘটনা নিয়ে যেভাবে বাংলার অধিকাংশ সংবাদমাধ্যমে কাটাছেঁড়া চলছে, তাতে আর হতাশা গোপন করে রাখলেন না মুখ্যমন্ত্রী। বরং তাঁর সমস্ত ক্ষোভ উগরে দিলেন।

বাণিজ্য সম্মেলনের প্রাঙ্গন নতুন করে সাজানো হয়েছে। সোমবার তার উদ্বোধন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী (Mamata Banerjee)। নব কলেবরে মিলন মেলাকে দেখাতে রাজ্যের শিল্প ও বাণিজ্য মহলের কর্তা ও প্রতিনিধিদেরও এদিন সেখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। এদিন তাঁদের সামনেই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এখানে প্রবলেম একটাই। সংবাদমাধ্যম মিডিয়া ট্রায়াল শুরু করে দেয়। আমি মুখ্যমন্ত্রী। আমি যখন কোনও ঘটনার খবর পেয়ে ডিজিকে জিজ্ঞেস করি, তখন উনি বলেন ম্যাডাম একটু সময় দিন। অথচ এদের সামান্য দায়িত্ববোধ নেই। তদন্ত হওয়ার আগেই এটা ওটা বলে দিচ্ছে”।

আরও পড়ুন: ‘হাঁসখালির মেয়েটি কি রেপ হয়েছে, না প্রেগন্যান্ট ছিল, লাভ অ্যাফেয়ার্স তো ছিলই’: মুখ্যমন্ত্রী

মুখ্যমন্ত্রীর সরাসরি অভিযোগ, “উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এখানকার মিডিয়া বাংলার ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। খালি নেগেটিভ আর নেগেটিভ! বাংলায় কি কিছুই ভাল নেই!”

বস্তুত গত প্রায় এক মাস ধরে উপর্যুপরি ঘটনায় বাংলা আন্দোলিত হয়ে রয়েছে। প্রথমে আনিস খানের মৃত্যু রহস্য, তার পরপরই পানিহাটি ও ঝালদায় দুই কাউন্সিলর খুন হন। সেই নিয়ে কাটাছেঁড়া যখন চলছে তখনই বগটুইয়ে তৃণমূল উপপ্রধান ভাদু শেখ খুন ও নিরীহ মানুষদের পুড়িয়ে মারার ঘটনা ঘটে যায়। এসএসসিতে নিয়োগ কেলেঙ্কারি নিয়ে হাইকোর্ট সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেওয়ায় অস্বস্তি বেড়েছে সরকারের। তাৎপর্যপূর্ণভাবে এই সব ঘটনায় কোনও না কোনওভাবে সরাসরি বা পরোক্ষে তৃণমূলের নাম জড়িয়েছে।

এদিন সেই প্রসঙ্গেই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “বাংলায় সবাই তৃণমূল, কী করবেন বলুন। মা তৃণমূল বাবাও তৃণমূল, ছেলে তৃণমূল বোনও তৃণমূল, মাসিও তৃণমূল, পিসিও তৃণমূল। কিন্তু বাবা যদি তৃণমূল করে আর ছেলে প্রেম করে বা অন্য কিছু ঘটিয়ে বসে তা হলে কি দলের দোষ!”

পর্যবেক্ষকদের অনেকের মতে, অতীতে বাম জমানার শেষ দিকে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। তখন বাংলায় বামেদের একাধিপত্য চলছে। ফলে অনিয়ম, অত্যাচার বা দুর্নীতির ঘটনায় কোনও না কোনওভাবে সিপিএমের নাম জড়িয়ে যেত।
শিল্পপতিদের আশ্বস্ত করতে মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও বলেন, ছোটখাটো ঘটনাকেও এখন বড় করে দেখানো হচ্ছে। তবে তিনি বেঁচে থাকতে বাংলার ভাবমূর্তি নষ্ট হতে দেবেন না।

এর আগে বাণিজ্য মেলা প্রাঙ্গনের বৈশিষ্ট্যও শিল্পপতিদের জানিয়েছেন মু্খ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, আগে বাংলার উৎপাদিত সামগ্রী বাইরের মানুষের সামনে তুলে ধরার জন্য কোনও পরিকাঠামো ছিল না। এখন সেই পরিকাঠামো হয়েছে। সরকার তো চেষ্টা করছেই, কিন্তু শিল্প ও উদ্যোগপতিরাও যেন চেষ্টা করেন, যাতে বাংলাকে আরও ভালভাবে বিশ্ব মাঝে তুলে ধরা যায়।

You might also like