Latest News

‘লেডি ব্রা’ নিয়ে বিতর্কের ঝড়! ব্রেবোর্ন কলেজের গেট থেকে খসেছে নামের অক্ষর

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ঐতিহ্যের ব্রেবোর্ন কলেজ। বয়স নেহাত কম হয়নি। কলকাতা শহরে মেয়েদের কলেজের মধ্যে প্রথম সারিতেই নাম করা যায় তার। কিন্তু সম্প্রতি লেডি ব্রেবোর্ন কলেজের যে ছবি দেখা গেল তা রীতিমতো লজ্জার। কলেজের দরজায় কলেজের নামটাতেই স্পষ্ট ফুটে উঠেছে অযত্ন, অবহেলা।

গত রবিবার ৯ জানুয়ারি ছিল রাজ্যের স্টেট এলিজিবিলিটি টেস্ট বা সেট পরীক্ষা। আর পাঁচটা কলেজের মতো লেডি ব্রেবোর্ন কলেজেও সেই পরীক্ষার সিট পড়েছিল। সেই পরীক্ষার্থীদের ক্যামেরাতেই ধরা পড়েছে সাম্প্রতিক এই ছবি। দেখা গেছে, কলেজের ফটকে যেখানে ইংরেজি হরফে বড় বড় করে কলেজের নাম লেখা থাকার কথা, সেখানে রয়েছে কেবল কয়েকটি অক্ষর। পুরো নাম নেই। বাকি অক্ষরগুলি উঠে গেছে অযত্নে।

ঠিক কী রয়েছে ব্রেবোর্ন কলেজের দরজায়?

দেখা যাচ্ছে, লেডি (LADY) শব্দটি সেখানে স্পষ্ট। ব্রেবোর্নের প্রথম তিন অক্ষরও (BRA) রয়েছে উজ্জ্বলভাবেই। তারপর থেকে বাকিটা আর নেই। অর্থাৎ গোটা বিষয়টি দাঁড়িয়েছে ‘লেডি ব্রা’। বলা বাহুল্য, মেয়েদের অন্তর্বাসের নামে কলেজের দরজায় ফুটে ওঠা এই অক্ষর ক’টি নিয়ে বিতর্ক দানা বেঁধেছে।

ব্রেবোর্ন কলেজের মূল ফটকে লেখা নাম থেকে এর আগেও বহুবার অক্ষর খসে পড়েছে। কলেজ কর্তৃপক্ষ উদ্যোগী হয়ে কখনও তা ঠিক করে দিয়েছেন, কখনও আবার দেখা গেছে দিনের পর দিন খাপছাড়া নামেই চলছে কলেজ। এই নিয়ে কলেজের ছাত্রীদের মধ্যেও কম অস্বস্তি ছিল না। কিন্তু এবার অক্ষর খসে পড়ে কলেজের দ্বিতীয় গেটের যে চেহারা দাঁড়িয়েছে, তাতে রীতিমতো লজ্জা পাচ্ছেন ছাত্রীরা। এত বড় একটা কলেজে কেন এমন অবহেলা, সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

এ প্রসঙ্গে লেডি ব্রেবোর্ন কলেজের এক অধ্যাপিকার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কলেজের গেটের এমন দশা হয়ে থাকলে তা সত্যিই খারাপ। তবে তিনি গত কয়েকদিনে সশরীরে কলেজে যাননি, তাই এই মুহূর্তে কলেজের গেটের ছবিটা তিনি স্বচক্ষে দেখেননি। তিনি বলেন, যদি সত্যিই এমন কিছু হয়ে থাকে সেটা দ্রুত ঠিক করা উচিত।

কলেজের এক ছাত্রী জানিয়েছেন, গেটে মাঝেমধ্যেই এই সমস্যা হয়ে থাকে। কোনও না কোনও অক্ষর খসে পড়ে যায়। কিছুদিন আগে একবার হয়েছিল। তবে তা ঠিক করে দেওয়াও হয়েছিল আবার। ফের নতুন করে এমনটা হয়ে থাকলে কলেজকেই দ্রুত সেটা দেখতে হবে। এখন তো কলেজে অফলাইন ক্লাস হচ্ছে না। এখনই এই কাজগুলো করে ফেলা যায়।

ব্রিটিশ ভারতে বাংলার গর্ভর্নর ছিলেন লর্ড ব্রেবোর্ন। তাঁর স্ত্রীর নামে পার্ক সার্কাসের এই মেয়েদের কলেজটি খোলা হয়েছিল ১৯৩৯ সালে। তারপর থেকে আজ পর্যন্ত শহরের নামজাদা কলেজের তালিকায় প্রথম সারিতেই থাকে ব্রেবোর্ন। বর্তমানে তা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত। সেই কলেজের গেটের এই অবস্থা নিয়ে তাই বিতর্ক যেন থামতেই চাইছে না।

You might also like