Latest News

খুনের অস্ত্র কোথায়? ভিকিদের জেরা করছে লালবাজার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়া (Gariahat Murder) রোডে কর্পোরেট-কর্তা সুবীর চাকী এবং তাঁর গাড়িচালক রবীন মণ্ডলকে খুনের পরেই মুম্বই পালিয়ে গিযেছিল অন্যতম অভিযুক্ত ভিকি হালদার ও তার শাগরেদ শুভঙ্কর মণ্ডল। শনিবার রাতে মুম্বইয়ের পারেল ইস্টের সেন্ট জেভিয়ার্স স্ট্রিটে একটি নির্মীয়মাণ বহুতলের পার্কিং লট থেকে দু’জনকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এখন খোঁজ চলছে জোড়া খুনে ব্যবহৃত মূল অস্ত্রের। সেই সঙ্গে সুবীরবাবুদের বাড়ি থেকে লুঠের জিনিসপত্রও উদ্ধারের চেষ্টা করচে লালবাজারের হোমিসাইড শাখা।

শনিবার গ্রেফতারির পরে ট্রানজিট রিমান্ডে ভিকি ও শুভঙ্করকে মুম্বই থেকে কলকাতায় আনা হয়েছে। মঙ্গলবার তাদের আলিপুর আদালতের মুখ্য বিচার বিভাগীয় বিচারকের এজলাসে তোলা হয়। দুজনকেই  ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

পুলিশ জানাচ্ছে, পরিকল্পিতভাবে ঠান্ডা মাথায় হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছিল ভিকি ও তার সঙ্গী। খুনের পরেই সুবীরবাবু ও তাঁর গাড়ির চালকের হাত থেকে খুলে নিয়েছিল সোনা ও রূপোর আংটি। তদন্তকারীদের দাবি, পরের দিন সকালে ডায়মন্ড হারবারে এক পরিচিত ব্যক্তির কাছে সেই আংটিগুলো জমা রেখে টাকা নিয়ে মুম্বইয়ের ট্রেনের টিকিট কাটে দুজনে।

তদন্তকারীরা বলছেন, ভিকি বারে বারেই তার বয়ান বদলাচ্ছে। লুঠের জিনিস কার কাছে গচ্ছিত রাখা আছে তা সঠিকভাবে জানাচ্ছে না। গতকালই ডায়মন্ড হারবারে ভিকিদের সেই পরিচিত ব্যক্তির বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। দক্ষিণ কলকাতার আরও কয়েকটি জায়গায় তল্লাশি চলছে। খুনের অস্ত্র কোথায় লুকিয়ে ফেলা হয়েছে তারও খোঁজ চলছে।

ভিকি এর আগেও মুম্বইতে ছিল। সেখানেই তার সঙ্গে পরিচয় হয় শুভঙ্করের। জেরায় ভিকি বলেছে, সুবীরবাবুর বাড়িতে প্রচুর টাকাপয়সা ও গয়না রাখা আছে জেনে লুঠের ছট কষে তারা। বাড়ির তিনতলা দেখার অছিলায় ঢুকে সুবীরবাবু ও তাঁর গাড়ির চালককে খুন করে ভিকি ও তার সঙ্গীরা। এরপরে বাপি মণ্ডল, জাহির গাজি ও সঞ্জয় মণ্ডল ডায়মন্ড হারবারে ফিরে যায়। পরের দিন ভিকি ও শুভঙ্কর বাড়ি ফেরে ও টাকা জোগাড় করে মুম্বই গা ঢাকা দেয়। সেখানে একটি নির্মীয়মাণ বহুতলে নিরাপত্তারক্ষীর কাজ জোগাড় করে। ভিকি পরিচিতদের কাছ থেকে ঠিকানা জোগাড় করে সেই বহুতলের পার্কিং লট থেকে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকাসুখপাঠ

You might also like