Latest News

মোবাইল গেম প্রতারণায় সল্টলেক থেকে গ্রেফতার মহিলা-সহ ৫, ধৃতের অ্যাকাউন্টে ৩০ কোটির হদিশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর ২৪ পরগনা: মোবাইল গেম প্রতারণা (mobile game fraud) মামলার তদন্তে এবার সল্টলেক সেক্টর ফাইভের একটি অফিসে গিয়েও তল্লাশি চালাল কলকাতা পুলিশ (Kolkata Police)। বুধবার অনেক রাতে সেক্টর ফাইভের গোদরেজ ওয়াটার সাইড বিল্ডিংয়ে এই তল্লাশি চলে। উদ্ধার হয় অসংখ্য সিমকার্ড (SIM cards) এবং হার্ডডিস্ক (hard disks)। পুলিশ সূত্রে খবর, এই প্রতারণা চক্রের সঙ্গে জড়িত পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, গার্ডেনরিচকাণ্ডে ধৃত ব্যবসায়ী আমির খানের সঙ্গে এই বেআইনি ব্যবসায় আরও বেশ কয়েকজন জড়িত। এরপরই বুধবার রাতে হঠাৎ করেই গোদরেজ ওয়াটার সাইড বিল্ডিংয়ের ওই অফিসে হানা দেয় কলকাতা পুলিশ। উদ্ধার হয় প্রচুর পরিমাণ হার্ড ডিস্ক, সিমকার্ড। জানা গেছে, সবকটি সিমকার্ডই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে লিঙ্ক করা রয়েছে। সেসবই বাজেয়াপ্ত করা হয়।

পুলিশ সূত্রে খবর, প্রসেনজিৎ সরকার (৩২), রাহুল পাল (৩৭), সমিত মণ্ডল (৩৭), প্রতীক বাজপেয়ী (২৯) ও সোমা নস্কর (২৮) নামে পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার মধ্যে ধৃত সোমা নস্করের ব্যাঙ্ক অ্যাাকাউন্টে মিলেছে ৩০ কোটি টাকার হদিশ। এমনকি এই অ্যাকাউন্টে বিদেশি মুদ্রাও ঢুকত বলে গোয়েন্দাদের অনুমান। পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

উল্লেখ্য, গত ১০ সেপ্টেম্বর, শনিবার গার্ডেনরিচে শাহি আস্তাবল এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী আমির খানের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে কোটি কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়। জানা গেছে, সেখানে ৭ কোটি টাকা ছিল। মোবাইল গেমিংয়ের মাধ্যমে প্রতারণা করে ব্যবসায় লক্ষ্মীলাভ হতো। আমিরের খাটের তলা থেকে উদ্ধার হয়েছিল প্লাস্টিকে মোড়ানো ৫০০ ও ২ হাজার টাকার নোটের বান্ডিল। সব টাকা সেদিনই বাজেয়াপ্ত করা হয়।

এর দিনকয়েক বাদেই গাজিয়াবাদ থেকে ধরা পড়ে আমি। শুরু হয় টানা জেরা। তাতেই উঠে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। গত মঙ্গলবার সন্ধেবেলায় ক্রিপ্টোকারেন্সিতে টাকা লেনদেন হতো বলে জানতে পারে কলকাতা পুলিশ। আর এবার তাতে নাম জড়াল আরও অন্যান্য ব্যবসায়ীদেরও। যার পরেই বুধবার রাতে এই চকিত তল্লাশি চালাল কলকাতা পুলিশ। এখন দেখার, এই ঘটনায় আর কার কার নাম উঠে আসে।

গার্ডেনরিচের আমিরের কাছ থেকে আরও ১৪ কোটি বাজেয়াপ্ত করল কলকাতা পুলিশ

You might also like