Latest News

শিশুকন্যাকে দেড় লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ কেরল হাইকোর্টের, মোবাইল চুরির অপবাদে পুলিশি হেনস্থা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গাড়ি থেকে মোবাইল ফোন (mobile phone) চুরির (theft)অপবাদ দিয়ে প্রকাশ্যে অপমান করেছেন পুলিশকর্মী (police officer), এই অভিযোগে কেরল হাইকোর্টে (kerala high court) ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ (compensation) চেয়ে মামলা (case) করেছিল ৮ বছরের মেয়ে (girl), তার বাবা (father)। হেনস্থা, হয়রানির (harassment) অভিযোগ  প্রমাণ হওয়ায় হাইকোর্ট মেয়েটিকে দেড়  লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রাজ্য  সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে। আত্তিনগল এলাকার এই ঘটনায় মামলার খরচ বাবদ তাদের ২৫ হাজার টাকাও দিতে হবে সরকারকে। রাজ্যের পিঙ্ক পুলিশের সঙ্গে যুক্ত রজিতা নামে পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশও দিয়েছে আদালত। পুলিশের বিরুদ্ধে অমানবিক, দুর্ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে  প্রায়ই। সেই প্রেক্ষাপটেই এই নির্দেশ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

মেয়েটিকে জনসমক্ষে বকাঝকা, অপমান  করেছিলেন রজিতা। ঘটনার ভিডিও যে কোনও সচেতন, মান-অপমান বোধ থাকা লোককেই ক্ষুব্ধ করে তুলবে, যন্ত্রণা দেবে বলে প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ আদালতের। দেখে বোঝা যায়, মেয়েটি পুলিশ অফিসারের ব্যবহারে কান্নায় ভেঙে পড়েছে। বিচারপতি দেবান রামচন্দ্রনের অভিমত, তার বেঁচে থাকার মৌলিক অধিকার  লঙ্ঘিত হয়েছে। তাই সে ক্ষতিপূরণ পাওয়ার অধিকারী।

আদালত বলেছে, আমাদের মেয়েকে মনে (anger)রাগ, ক্রোধ পুষে রেখে বড় হতে দিতে চাই না আমরা। অবিলম্বে ক্ষোভ দূর করার পদক্ষেপ করা উচিত। সংবিধানের ২১ অনুচ্ছেদের আওতায় ওর মৌলিক অধিকার খর্ব হয়েছে, অস্বীকার করার উপায় নেই। শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে যতদিন না ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, ওই অফিসারকে ডিউটি থেকে সরিয়ে রাখতে হবে, যেখানে সাধারণ মানুষের সঙ্গে তাঁকে মেলামেশা করতে হয়। রজিথার ঊর্ধ্বতন অফিসারদেরই তিনি নিজের এক্তিয়ারের উল্টো কাজ  করছেন দেখে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত ছিল বলে জানিয়েছেন বিচারপতি। মানুষের সঙ্গে কেমন আচরণ করা উচিত, কোল্লাম শাখায় বদলি হওয়া  রজিতাকে সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ট্রেনিং দিতেও নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

পিটিশনে মেয়েটি বলেছিল, বাবার সঙ্গে সে গত ২৭ আগস্ট রাস্তায় দাঁড়িয়ে দেখছিল, বিক্রম সারাভাই রিসার্চ সেন্টারের দিকে কার্গো যাচ্ছে। রাস্তায় পুলিশ ছিল। পুলিশ ভ্যানের পাশে তারা দাঁড়িয়েছিল। মহিলা অফিসার মোবাইল খুঁজে না পেয়ে তাদের ধরেন। সবার সামনে তাদের জেরা করেন। মেয়েটির দেহ তল্লাশিও হয়। যদিও কিছুক্ষণ বাদেই নিজের গাড়িতেই মোবাইল পান তিনি। তারপরও পুলিশ দলটি মেয়েটির কাছে বিন্দুমাত্র দুঃখ প্রকাশ না করেই চলে যায়। কিছুদিন বাদে আদালতে যায় মেয়ে-বাবা।

 

 

You might also like