Latest News

ভারত ফের খুলছে কর্তারপুর করিডোর, শিখদের সম্মান জানানোর জন্যই এই সিদ্ধান্ত, জানাল সরকার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গুরু নানকের জন্মবার্ষিকীর দু’দিন আগে, বুধবার খুলে যাচ্ছে কর্তারপুর (Kartarpur) করিডোর। ২০২০ সালের মার্চ মাসে ভারতে কোভিড অতিমহামারী শুরু হওয়ার পরে ভারতীয় পর্যটকদের ব্যাপারে কড়াকড়ি করে পাকিস্তান। তখনই কর্তারপুর করিডোর বন্ধ করে দেয় ভারত। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ টুইট করে বলেছেন, কর্তারপুর করিডোর খুলে গেলে শিখ তীর্থযাত্রীরা উপকৃত হবেন। এতদিন ৪.৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ওই করিডোর বন্ধ থাকার জন্য পাকিস্তানকেই দোষারোপ করে ভারত।

অমিত শাহ টুইট করে বলেছেন, কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর ফলে বিপুল সংখ্যক শিখ তীর্থযাত্রী উপকৃত হবেন। গুরু নানক দেবজি ও শিখ সম্প্রদায়ের প্রতি সম্মান দেখানোর জন্যই নরেন্দ্র মোদী সরকার ওই করিডোর খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সম্প্রতি পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি, তাঁর পূর্বসুরী অমরিন্দর সিং, পাঞ্জাব প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি নভজ্যোৎ সিং সিধু ও আরও কয়েকজন শিখ নেতা কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানিয়েছিলেন। মঙ্গলবার অমরিন্দর সিং টুইট করে বলেন, “প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীজির কাছে আমি আবেদন জানাই, গুরু নানক দেবজি-র জন্মবার্ষিকীর আগেই যেন কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়া হয়।”

সিধু টুইট করে বলেছিলেন, “গুরু নানকের গুরুপর্বে আমি ভারত সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছি, কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়া হোক। সেই সঙ্গে বাতিল করা হোক তিনটি কৃষি আইন।”

কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তকে প্রথমে স্বাগত জানান অমরিন্দর সিং ও সিধু। ক্যাপটেন অমরিন্দর সিং টুইট করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা জানাই। সিধু টুইট করে বলেন, ওয়েলকাম স্টেপ। আগামী দিনেও যেন ওই করিডোর খোলা থাকে।

গত ২৭ জুন প্রথমবার কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে পাকিস্তান। ইসলামাবাদ থেকে বলা হয়, ৩ অক্টোবর ওই করিডোর খুলে দেওয়া হবে। ওই করিডোর পাঞ্জাবের গুরুদাসপুরে ডেরা বাবা নানক ধর্মস্থানের সঙ্গে পাকিস্তানের দরবার সাহিব কর্তারপুরকে যুক্ত করে। কর্তারপুরেই শিখ ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা গুরু নানক জীবনের শেষ ১৮ বছর কাটিয়েছিলেন বলে মনে করা হয়।

You might also like