Latest News

‘সরকার চালাচ্ছি না, সামলাচ্ছি’, বিজেপির মন্ত্রীর ফোন-ফাঁস! বোম্মাইয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কর্নাটকে (Karnataka) সরকার ভেঙে সরকার গড়া বিজেপির (BJP) কি টালমাটাল অবস্থা?

একটি ফোন কলের অডিও ক্লিপ ফাঁস হওয়া নিয়ে দক্ষিণের রাজ্যটিতে তুলকালাম কাণ্ড চলছে। কী আছে তাতে? বাসবরাজ বোম্মাই (Bommai) সরকারের আইনমন্ত্রী (Law Minister) জেসি মধুস্বামী একজন সমাজকর্মীর সঙ্গে কথা বলছিলেন। সেই কথোপকথনের একটি অংশে তিনি বলেন, “আমরা এখানে সরকার চালাচ্ছি না। আমরা শুধু কোনও রকমে তা সামলে যাচ্ছি। আগামী ৭-৮ মাস কোনওক্রমে টেনে যেতে হবে।’’

আগামী বছর কর্নাটকের ভোট। সেই কথাই বলতে চেয়েছেন আইনমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী বাসবরাজ বোম্মাইয়ের ভূমিকা নিয়ে যখন জনমানসে ক্ষোভ দানা বাঁধছে তখন আইনমন্ত্রীর এ হেন মন্তব্য সরকারের পলকা অবস্থাকেই বেআব্রু করে দিয়েছে বলে মত অনেকের।

গুজরাতে গণধর্ষণ ও খুনে অভিযুক্তদের মুক্তি, মোদী ও বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ বিরোধীদের

অডিও ক্লিপের সত্যতা যাচাই করতে সংবাদমাধ্যমকে বিশেষ কষ্ট করতে হয়নি। কারণ মুখ্যমন্ত্রী বোম্মাই নিজেই বলে দিয়েছেন, ওটা মধুস্বামীর গলা। তবে তাঁর কথায়, একজন মন্ত্রীর কথার অংশবিশেষ ভাইরাল করে বিষয়টির ভুল ব্যাখা করা হচ্ছে। আবার কর্নাটকের পরিবহণমন্ত্রী দাবি করেছেন, এখনই ক্যাবিনেট থেকে মধুস্বামীকে সরয়ে দেওয়া হোক।

কর্নাটকের গতবারের ভোট মনে পড়ে? গদিতে থাকা বিজেপি গরিষ্ঠতা পায়নি। তাও ‘স্টেক ক্লেম’ করে রাজভবনের বদান্যতায় প্রথমে মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন বিএস ইয়েদুরাপ্পা। মাত্র আড়াই দিনে সেই সরকার পড়ে গিয়েছিল। তারপর জেডিএস এবং কংগ্রেসের সরকার তৈরি হয়। মুখ্যমন্ত্রী হন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচডি দেবগৌড়ার ছেলে এইচডি কুমারস্বামী।

বছর খানেক পার করার পর ফের সেই সরকার ভেঙে যায়। কংগ্রেস ও জেডিএসের কয়েকজন বিধায়কবিজেপিতে যোগ দিয়ে দেন। ফলে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারান কুমারস্বামী। সেই সরকারে ইয়েদুরাপ্পাকে মুখ্যমন্ত্রী করলেও কয়েক মাস যেতে না যেতেই মুখ বদল করে বিজেপি। আনা হয় বোম্মাইকে।

কিন্তু এখন প্রশ্ন হচ্ছে বিজেপির এই টালমাটাল অবস্থায় বিরোধী হিসেবে কংগ্রেস কী করবে?
সম্প্রতি রাহুল গান্ধীর কর্নাটক সফরেই কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের বিষয়টি প্রকাশ্যে এসে গিয়েছিল। সিদ্দারামাইয়ার সঙ্গে ডিকে শিবকুমারের লড়াই কর্নাটকের রাজনীতিতে সর্বজনবিদিত। এখন তা আরও তীব্র আকার নিয়েছে। ফলে কংগ্রেস কতটা সুযোগ নিতে পারবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছেন পর্যবেক্ষকদের অনেকে। তবে দক্ষিণের রাজ্যটিতে বিজেপিতে একেবারেই ভাল অবস্থায় নেই তা একরকম স্পষ্ট।

You might also like