Latest News

Kalyan Banerjee: বড় টিপ নিয়ে ফের টিপ্পনী কল্যাণের, এবার অগ্নিমিত্রাকে কটাক্ষ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পোশাক, সাজগোজ, চেহারা ইত্যাদি নিয়ে রাজনৈতিক আক্রমণ যখন জলভাত হয়ে গিয়েছে তখন আসানসোলের উপনির্বাচনে তাতে নতুন সংযোজন ঘটালেন শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় (Kalyan Banerjee)। আসানসোলের বিজেপি প্রার্থী অগ্নিমিত্রা পলের কপালের টিপ নিয়ে এবার টিপ্পনি কাটলেন কল্যাণ।

বুধবার আসানসোলের একটি কর্মীসভায় কল্যাণ (Kalyan Banerjee) বলেন, ‘বিরাট বড় একটা লাল টিপ পরে শুধু ঝগড়া করছে। আসানসোলের মেয়েকে যারা আসানসোলে চায় বলছে তারা বলুক  সেই আসানসোলের মেয়েকে এমএলএ হওয়ার পর কেন মানুষ একদিনের জন্যও দেখতে পায়নি।’

কল্যাণের এই মন্তব্য নিয়ে আসানসোল দক্ষিণের বিধায়ক তথা বিজেপির প্রার্থী অগ্নিমিত্রা বলেন, ‘এটাই তৃণমূলের সংস্কৃতি। নেতারা কপালের টিপ, পায়ের নূপুর নিয়ে কথা বলবেন আর তাতে উৎসাহিত হয়ে ওদের কর্মীরা মহিলাদের ধর্ষণ করবে। সব দেখে মুখ্যমন্ত্রী বলবেন ছোট ঘটনা।’ অগ্নিমিত্রা আরও বলেন, ‘এর জবাবে আমি কল্যাণবাবুকে কোনও পাল্টা কটাক্ষ করব না। কারণ সেটা আমার বা আমার দলের শিক্ষা, রুচিবোধের পরিচয় নয়।’

গণহত্যায় অন্যতম অভিযুক্ত লালন পলাতক, তালা ভেঙে তার বাড়িতে ঢুকল সিবিআই

রাজনৈতিক মঞ্চে আক্রমণ, পাল্টা আক্রমণ থাকবে সেটাই দস্তুর। কিন্তু সেখানে কেন টিপ, শাড়ি বা অন্য পোশাক কিংবা চেহারা নিয়ে কথা হবে সেটাই প্রশ্ন। এ ব্যাপারে কোনও দলই বাদ নেই। আবার কিছু নেতা এসব ব্যাপারে অবিসংবাদী। তাঁরা যেন নিজের রেকর্ড নিজেই ভাঙেন।

টিপ নিয়ে মন্তব্য করায় এর আগেও বিতর্কে জড়িয়েছিলেন কল্যাণবাবু (Kalyan Banerjee)। সেইসময়ে তাঁর নিশানায় ছিলেন কংগ্রেস নেত্রী দীপা দাসমুন্সি। শ্রীরামপুরের একটি সভা থেকে দীপাকে কটাক্ষ করতে গিয়ে বলেছিলেন, ‘উনি দুটো রুটি ভাজেন। একটা রুটি খান আর অন্যটা কপালে লাগান।’

এই সময়ের মহিলা রাজনীতিকদের টিপের ব্যাপারে অনেকেই শৌখিন। অগ্নিমিত্রার মতো ইংলিশ বাজারের বিজেপি বিধায়ক শ্রীরূপা চৌধুরীও বড় টিপ পরেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানিও সবসময়ে বড় টিপ না পরলেও তা নজরে পড়ে। প্রয়াত সুষমা স্বরাজও বড় টিপ পরতেন। এটা শুধু বিজেপির ব্যাপার তা নয়। কার্যত সব দলেই প্রযোজ্য। সিপিএম নেত্রী প্রয়াত শ্যামলী গুপ্ত বেশ বড় টিপ পরতেন কপালে। এখনকার সিপিএম নেত্রীদের মধ্যে দুই পলিটব্যুরোর সদস্য বৃন্দা কারাট এবং সুহাসিনী আলিও সারা বছর বড় টিপে সাজেন। বাংলায় কনীনিকা ঘোষও তাই। আবার প্রবীণ কংগ্রেস নেত্রী অম্বিকা সোনি, কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যাওয়া জয়ন্তী নটরাজনরাও বড় টিপ পরেন। তৃণমূলেও কাকলি ঘোষ দস্তিদার, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যদের মাঝেমাঝেই বড় টিপে দেখা যায়। একদা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সঙ্গে থাকা সোনালি গুহর কপালে একসঙ্গে দুরকম টিপ দেখা যেত।

এসব রয়েছে। পর্যবেক্ষকদের অনেকের মতে, টিপ, লিপস্টিক, পোশাককে রাজনৈতিক আক্রমণের হাতিয়ার করা খুব একটা ভাল ব্যাপার নয়।

You might also like