Latest News

জাম্বো জিলিপি বিকোচ্ছে বাঁকুড়ার ভাদুপুজোর মেলায়! দাম তিনশ থেকে সাতশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বাঁকুড়া: কত বড় জিলিপি আপনি খেয়েছেন? সেই জিলিপি কিনতে সর্বাধিক কত দামই বা দিতে হয়েছে আপনাকে? বড়জোর প্রতি পিস পাঁচ টাকা, দশ টাকা, খুব বেশি হলে কুড়ি টাকা। কিন্তু একটা জিলিপির দাম যদি হয় তিনশ থেকে সাতশ টাকা আর যদি তার ওজন হয় দুই থেকে চার কিলো তাহলে অবাক হতে হয় বৈকি! ভাদ্র মাসের সংক্রান্তিতে ভাদুপুজো (Bhadu Puja) উপলক্ষে এমনই জাম্বো জিলিপি (jumbo jalebi) তৈরির চল বাঁকুড়ার (Bankura) প্রাচীন জনপদ কেঞ্জাকুড়ায়।

কথিত আছে, পঞ্চকোট রাজ নীলমনি সিংহ দেওয়ের তৃতীয় কন্যা ভদ্রাবতীর অকাল মৃত্যুতে তাঁর স্মৃতিতেই রাঢ় বাংলা জুড়ে ভাদুপুজোর সূচনা হয়েছিল। বাঁকুড়া, পুরুলিয়ায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা ছিল এই ভাদুপুজোর। ভাদু পুজোর রমরমা ছিল দ্বারকেশ্বর নদের তীরে বাঁকুড়ার প্রাচীন গঞ্জ কেঞ্জাকুড়াতেও। সারা ভাদ্র মাস জুড়ে ঘরে ঘরে লোকগানের মাধ্যমে ভাদু আরাধনার পাশাপাশি ভাদ্র সংক্রান্তিতে হত ভাদুর জাগরণ। আয়োজন উপাচারে প্রতিবেশীর ভাদু পুজোকে টপকে যাওয়ার এক সুস্থ প্রতিযোগিতাও চলত। আর সেই প্রতিযোগিতাতেই ভাদুর সামনে নিবেদিত জিলিপির আকার বৃদ্ধি পেতে থাকে।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ভাদুপুজোর জনপ্রিয়তায় এখন ভাঁটা পড়েছে। কিন্তু ভাদু পুজো উপলক্ষে কেঞ্জাকুড়ায় আজও তৈরি হয় জাম্বো জিলিপি। রসে টইটম্বুর মুচমুচে জাম্বো জিলিপিতে কামড় বসিয়েই বছর ভরের সাধ পূরণ করেন স্থানীয়রা। আত্মীয় পরিজনকে উপহার হিসাবেও এই জিলিপি পাঠানোর চল রয়েছে।

সুনামে আকৃষ্ট হয়ে এখন জাম্বো জিলিপি জেলার বাইরে তো বটেই এমনকি পার্শ্ববর্তী রাজ্য ঝাড়খণ্ডের মানুষের কাছেও ভাদ্র সংক্রান্তির অন্যতম আকর্ষণীয় বস্তু। তাই এখন সেখানে দেদার বিকোচ্ছে দেড়-কেজি, দু-কেজি, তিন কেজি ওজনের জিলিপি। কিলো প্রতি দেড়শো টাকা। তবে পকেটের কসুর করছেন না সাধারন মানুষ। দু-বছরের করোনার খরা কাটিয়ে এবার বেচাকেনা ভালো হওয়ায় খুশি বিক্রেতারাও।

ডুয়ার্সে হাতি পুজো, গরুমারায় গজবন্দনায় সামিল বনকর্মী-পর্যটকরা

You might also like