Latest News

Jhargram: মাওবাদী দাপটে থমথমে ঝাড়গ্রামের দুই প্রান্তে দুই দেহ উদ্ধার, একজন ঝাড়খণ্ডের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শুক্রবার মাওবাদীদের ডাকা বনধে ব্যাপক প্রভাব পড়েছিল ঝাড়গ্রাম (Jhargram) জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে। দেড় দশক আগের ছবি উস্কে দিয়েছিল শুক্রবারের বনধ। তারমধ্যেই শনিবার জামবনী ও বেলপাহাড়ি থেকে উদ্ধার হল দুটি দেহ। একটি নদীর চরে মাটির নীচ থেকে অন্যটি গাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায়। যা নিয়ে ঝাড়গ্রামে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

শুক্রবার রাতে জামবনী থানার হিজলি এলাকায় ডুলুং নদীর চর খুঁড়ে সুবোধ কুমার বেসরা নামের এক যুবকের দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃতের মাথায় আঘাতের চিহ্ন ছিল। অনুমান খুন করে দেহ লোপাটের উদ্দেশে নদীর চড়ে পুঁতে দেওয়া হয়েছিল।

কুণাল মন্ত্রিসভার কেউ না, পার্থদা দায়ী হলে আমিও দায়ী, স্কুল সার্ভিস দুর্নীতি বিতর্কে ববি হাকিম

এই ঘটনায় মৃতের আত্মীয় লক্ষীন্দর বেসরা নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাকে শনিবার কোর্টে তোলা হলে সাত দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মৃত সুবোধ কুমার বেসরা ঝাড়খন্ডের চাকুলিয়া থানার, বাঘডিহা গ্রামের বাসিন্দা।

গত ৫ এপ্রিল জামবনীর হিজলি গ্রামে আত্মীয়র বাড়িতে এসে নিখোঁজ হন তিনি। হিজলি জঙ্গল লাগোয়া এলাকা থেকে প্যান্ট, সাইকেল, ব্যাগ উদ্ধার হয়। সেই সূত্র থেকেই পরিবারকে খবর দেয় জামবনী থানার পুলিশ। তল্লাশি শুরু করলে নদীর চরে দেহ উদ্ধার হয়। এদিন দেহ ফরেনসিক তদন্তের জন্য মেদনীপুর মেডিক্যাল কলেজে পাঠানো হয়েছে।

অন্যদিকে বেলপাহাড়িতে জঙ্গলে মহিলার মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। বাঁকুড়ার হিজলির বাসিন্দা আত্মা পালের(২৬) দেহ উদ্ধার হয় বেলপাহাড়ি থানার পাঠাগরের জঙ্গলে। নিজের শাড়ি গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় দেহ উদ্ধার হয়। মৃতদেহ ময়না তদন্তর জন্য পাঠানো হয়েছে ঝাড়গ্রামে। আত্মহত্যা নাকি খুন—খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

You might also like