Latest News

সন্তানসম্ভবা পুলিশকর্মীকে গুলি করে মারল তালিবান, সামনে দাঁড়িয়ে দেখল স্বামী, বাচ্চারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তালিবানি বর্বরতার (talibani barbarism) বলি ঘোর প্রদেশের মহিলা পুলিশকর্মী (policewoman)। আফগানিস্তানে দুদশক বাদে প্রত্যাবর্তনের পর তালিবান (taliban) মুখে শরিয়তের নিয়মবিধির মধ্যেই মহিলাদের অধিকারকে সম্মান করার প্রতিশ্রুতি দিলেও, তা যে নিছকই কথার কথা, তার নানা প্রমাণ সামনে আসছে। তাতে সর্বশেষ সংযোজন ঘোরের ঘটনাটি।  সেখানে পরিবারের লোকজনের সামনেই ওই মহিলা পুলিশকর্মীকে গুলি করে মেরেছে (shot dead) তালিবান। তিনি সন্তানসম্ভবা (pregnant) ছিলেন।

বানু নিগারাকে ফিরোজকোহতে তাঁর বাড়িতে ঢুকে স্বামী, শিশুসন্তানদের সামনেই হত্যা করে জঙ্গিরা, দাবি বিভিন্ন আফগান মিডিয়ার। তাঁর পরিবারের সদস্যদের উদ্ধৃত করে প্রথম সারির আফগান সাংবাদিক বিলাল সারোয়ারি ট্যুইট করেন, ঘোর প্রদেশে গতকাল রাত দশটা নাগাদ পুলিশ অফিসার নিগারাকে তাঁর স্বামী, বাচ্চাদের সামনে গুলি করে মেরে ফেলা  হয়। নিগারা   ৬মাসের সন্তানসম্ভবা ছিলেন। তালিবানই তাঁকে  খতম করেছে।

আরও পড়ুন—-পঞ্জশির উপত্যকা সম্পূর্ণ তাদের দখলে, দাবি তালিবানের

যদিও তালিবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ বিবিসিকে বলেছেন, তালিবান তাঁর হত্যায় জড়িত নয়। আমরা ঘটনাটির কথা জানি। আমি দায়িত্ব নিয়ে বলছি, তালিবান ওকে মারেনি, এ ব্যাপারে আমাদের তদন্ত চলছে। তালিবান ইতিমধ্যেই পুরানো প্রশাসনের হয়ে কাজ করা লোকজনকে সাধারণ ক্ষমাপ্রদর্শন করেছে বলে জানিয়ে মুজাহিদ বলেন, হয়তো ব্যক্তিগত শত্রুতা বা অন্য কোনও কারণে তিনি খুন হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বিবিসিকে আরও ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা বলেছেন।  তাঁদের বক্তব্য,  স্বামী, সন্তান, অন্যদের সামনেই ওই মহিলাকে মারধর করে গুলি করে খুন করে তালিবান। কেউ তালিবানের বদলার ভয়ে মুখ খোলেনি। তিন বন্দুকধারী সেই বাড়িতে চড়াও হয়ে প্রথমে তল্লাশি চালায়। তারপর বাড়ির লোকজনকে বেঁধে ফেলে। তারা আরবিতে কথা বলছিল। সোস্যাল মিডিয়ায় বেরনো ছবিতে দেখা যাচ্ছে, মহিলার দেহ মাটিতে পড়ে আছে,  অত্যাচারে বিকৃত মুখের  চেহারা।

ঘোর প্রদেশের জনৈক নাগরিক অধিকার কর্মী জানিয়েছেন, এলাকাটি তালিবানের হাতে পড়ার আগে প্রাদেশিক জেলখানায় নিযুক্ত ছিলেন ওই মহিলা পুলিশকর্মী।

গত শনিবার তালিবান শাসনে রাজনৈতিক অধিকারের দাবিতে মিছিলে জনৈক মহিলা কর্মীকে তালিবান সদস্যরা মারধর করেছে বলে অভিযোগ করেছিলেন তিনি। নার্গিস সাদ্দাত নামে ওই কর্মীর গাল থেকে রক্ত ঝরার ছবিও দেখা যায় একটি ভিডিওতে।

You might also like