Latest News

আইসিস, আল কায়েদা সহ ১১টি ইসলামি কট্টরপন্থী গোষ্ঠী নিষিদ্ধ শ্রীলঙ্কায়, সন্ত্রাসের চক্রান্তে সামিল হলে ১০ থেকে ২০ বছরের কারাবাস

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সন্ত্রাস দমন (সাময়িক) বিধি আইনে দেশে একাধিক উগ্রপন্থী, সন্ত্রাসবাদী সংগঠনকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে বিশেষ বিজ্ঞপ্তি জারি করলেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাক্সে। দেশে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের সঙ্গে যোগসূত্র থাকায় ইসলামিক স্টেট (আইসিস), আল কায়েদা সমেত ১১টি কট্টরপন্থী ইসলামি গোষ্ঠীর ওপর নিষেধাজ্ঞার খাড়া নেমেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সন্ত্রাসবাদী কাজকর্মে সামিল থাকলে বা চক্রান্তে লিপ্ত হলে ১০ থেকে ২০ বছরের কারাবাস হবে। নিষিদ্ধ গোষ্ঠীগুলির মধ্যে শ্রীলঙ্কা ইসলামিক স্টুডেন্টস মুভমেন্টের মতো স্থানীয় কিছু মুসলিম সংগঠনও আছে।
২০১৯ সালে ইস্টারের রবিবারের বেনজির আত্মঘাতী বিস্ফোরণের পরপরই ন্যাশনাল তৌহিথ জামাত, আরও দুটি স্থানীয় জেহাদি সংগঠনকে নিষিদ্ধ করেছিল শ্রীলঙ্কা। জামাত জঙ্গিদের নৃশংস হামলার টার্গেট ছিল কলম্বোর একাধিক বিলাসবহুল হোটেল, গির্জা। ২৭০ জন বিস্ফোরণে নিহত, ৫০০ লোক জখম হয়।
নাশকতার পরপরই প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মৈথিরিপালা সিরিসেনা নিযুক্ত বিশেষ তদন্ত কমিটি সুপারিশ করে বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে মৌলবাদ, কট্টরপন্থা প্রচারকারী মুসলিম চরমপন্থী গোষ্ঠীগুলিকে নিষিদ্ধ করতে হবে। রিপোর্টে ফোর্সেস অব বুদ্ধিস্ট পাওয়ার বা বিবিএস নামে একটি চরমপন্থী বৌদ্ধ গোষ্ঠীকেও নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করে বলা হয়, ওদের কার্যকলাপের জেরে মুসলিমদের মধ্যে কট্টরপন্থা, উগ্রপন্থা বাড়ছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত প্রেসিডেন্টের জারি করা বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বৌদ্ধ গোষ্ঠীটিকে নিষেধাজ্ঞার তালিকার বাইরে রাখা হয়েছে।
প্যানেলের রিপোর্টকে অবশ্য খারিজ করে সব রাজনৈতিক দল, যদিও স্থানীয় ক্যাথলিক গির্জার কার্ডিনাল ম্যালকম রঞ্জিথ তাদের সুপারিশগুলি কার্যকর করার দাবি করেন। তিনি যুক্তি দেন, সেগুলি বোমা হামলার বলি হওয়া লোকজনকে কিছুটা হলেও ন্যয়বিচার দেবে।
প্যানেলের রিপোর্টে সিরিসেনা ও তত্কালীন শীর্ষ নিরাপত্তা সংক্রান্ত পুলিশকর্তার দিকে আঙুল ওঠে। বলা হয়, আসন্ন সন্ত্রাসবাদী হামলার ব্যাপারে আগাম গোয়েন্দা সূত্রে খবর ছিল, কিন্তু তারপরও তাঁরা বোমা বিস্ফোরণ ঠেকাতে ব্যর্থ হন।

 

 

 

You might also like