Latest News

ভারতে আগাছানাশক প্রতিরোধী ধানের ভ্যারাইটির চাষ শুরু হচ্ছে মঙ্গলবার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : পুসা বাসমতী ১৯৭৯ (Pusa Basmati 1979) এবং পুসা বাসমতী ১৯৮৫। মঙ্গলবার এই দুই ধরনের ধানের চাষ শুরু হচ্ছে ভারতে। ইন্ডিয়ান এগ্রিকালচারাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট এই প্রথমবার ধানের এমন দু’টি ভ্যারাইটি বানিয়েছে যারা আগাছানাশক প্রতিরোধ করতে পারে। কিন্তু এই ভ্যারাইটিগুলি জেনেটিকালি মডিফায়েড নয়। কৃষকরা ধানক্ষেতে আগাছা মারার জন্য ইমাজেথাপির রাসায়নিক স্প্রে করলেও ওই দু’টি ভ্যারাইটির ধানের কোনও ক্ষতি হবে না। শুধু তাই নয়, ওই দুই ভ্যারাইটি চাষ করতে জল কম লাগবে। কৃষকের শ্রমও কম লাগবে।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ধানের ওই দুই ভ্যারাইটির উদ্বোধন করবেন। কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের ডিরেক্টর এ কে সিং বলেছেন, “ধানের চারা রোপণ করার পরে প্রাথমিকভাবে জলই আগাছানাশকের কাজ করে। কিন্তু নতুন ভ্যারাইটির ক্ষেত্রে ইমাজেথাপির সেই কাজ করবে। বেশি জল প্রয়োজন হবে না।” ওই রাসায়নিক সাধারণ ধানক্ষেতে ব্যবহার করা যায় না। কারণ তাতে আগাছার পাশাপাশি ধানের চারাও নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু ধানের নতুন দুই ভ্যারাইটিতে আছে এএলএস নামে একধরনের জিন। তার ফলে ইমাজেথাপির তার কোনও ক্ষতি করতে পারে না।

এ কে সিং বলেন, “মিউটেশন ব্রিডিং-এর ফলে ওই ধানের ভ্যারাইটিগুলি আগাছানাশক সহ্য করতে পারে। তার মধ্যে বাইরের কোনও জিন নেই।”

পুসা বাসমতী ১৯৭৯ এবং ১৯৮৫ তৈরি করা হয়েছে ধানের চলতি ভ্যারাইটিগুলির মধ্যে ক্রস ব্রিডিং করে। মূলত পুসা ১১২১ এবং পুসা ১৫০৯-এর সঙ্গে ‘রবিন’ ভ্যারাইটির সংযোগ ঘটিয়ে ধানের নতুন ভ্যারাইটি তৈরি করা হয়েছে।

এখনকার দিনে আগের মতো বেশি সংখ্যায় কৃষি শ্রমিক পাওয়া যায় না। তাছাড়া জলস্তরও নেমেছে। তাই পাঞ্জাব ও হরিয়ানার কৃষকরা ধানের ‘ডায়রেক্ট সিডিং’ শুরু করেছেন। দু’টি রাজ্যে মোট ৪৪.৩ লক্ষ হেক্টর জমিতে ধানের চাষ হয়। চলতি বছরে তার মধ্যে ছয় লক্ষ হেক্টর জমিতে ধানের ডায়রেক্ট সিডিং করা হয়েছে।

ডায়রেক্ট সিডিং-এর মাধ্যমে ধান চাষ করলে মূলত দুই ধরনের আগাছানাশক ব্যবহার করা হয়। ধান রোপণ করার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবহার করা হয় পেন্ডিমেথালিন। তারপর ১৮ থেকে ২০ দিনের মধ্যে ব্যবহার করা হয় বিসপাইরাবাক সোডিয়াম। দু’টি আগাছানাশকই ইমাজেথাপিরের চেয়ে দামি। এক একর জমিতে ইমাজেথাপির স্প্রে করতে খরচ হয় ৩০০ টাকা। কিন্তু অপর দু’টি আগাছানাশকের পিছনে খরচ হয় দেড় হাজার টাকা।

You might also like