Latest News

কল্পনা চাওলা হতে চাইতেন, রাফাল উড়িয়ে ইতিহাস গড়বেন বায়ুসেনার দক্ষ পাইলট অবনী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জামনগর এয়ারবেস থেকে যখন মিগ-২১ বাইসন জেট আকাশে ডানা মেলেছিল, তখন অবাক চোখে ককপিটের দিকে চেয়েছিলেন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের দক্ষ অফিসাররা। বায়ুসেনার এয়ার পাইলটদের দৃষ্টিতে ছিল শ্রদ্ধা। জামনগর থেকে গুজরাটের এয়ারবেসে ৩০ মিনিটের উড়ান শেষ করে ককপিট থেকে যিনি নেমেছিলেন, তিনি কোনও পুরুষ এয়ার পাইলট নন, একজন মহিলা। দক্ষ বায়ুসেনা অফিসার, সুদক্ষ পাইলট, ঝকঝকে এক তরুণী—অবনী চতুর্বেদী। ভারতীয় বায়ুসেনার প্রথম এয়ার পাইলট যিনি মিগ-২১ বাইসন জেট উড়িয়েছিলেন। যুদ্ধবিমানের ককপিট জয় করেছিল নারীশক্তি। এই অবনীই এবার ফরাসি রাফাল ওড়ানোর দায়িত্ব পেয়েছেন।

অবনীই প্রথম একা মিগ-২১ যুদ্ধবিমানের ককপিটে বসার সাহস দেখিয়েছিলেন। দ্বিতীয়বার মিগ উড়িয়ে খবরের শিরোনামে এসেছিলেন এয়ার ফাইটার পাইলট ভাবনা কান্থ। বায়ুসেনা জানাচ্ছে, রাফালের মতো আধুনিক প্রযুক্তির যুদ্ধবিমান ওড়ানোর মতো সাহস ও দক্ষতা দুই আছে অবনীর। আকাশে বহুক্ষণ উড়ানের অভিজ্ঞতাও আছে তাঁর। মিগ-২১ বাইসন জেট ওড়ানো বড় কম কথা নয়। এই মিগ উড়িয়েই পাকিস্তানের এফ-২১ জেটের পিছু ধাওয়া করেছিলেন বায়ুসেনার উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান।

অম্বালা বায়ুসেনা ঘাঁটির ১৭ নম্বর স্কোয়াড্রনে যোগ দিয়েছে পাঁচ ফরাসি রাফাল ফাইটার জেট। এই ১৭ গোল্ডেন অ্যারো স্কোয়াড্রন ফের একবার ইতিহাস লিখতে চলেছে। প্রথমবার রাফালের মতো দুর্ধর্ষ ফাইটার জেট ওড়াবেন এক মহিলা এয়ার ফাইটার পাইলট। চিনের পঞ্চম প্রজন্মের জে-২১ চেংড়ু যুদ্ধবিমানের মোকাবিলা করতে পারে ফরাসি রাফাল। মিসাইল ছোড়ার প্রযুক্তিও আছে রাফালের। গর্বের সঙ্গে এমন যুদ্ধবিমানের ককপিটের হাল ধরবেন অবনী।

আরও পড়ুন: সেনাবাহিনীর তৃতীয় মহিলা লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাধুরী কানিৎকার, ছক ভেঙে ফের নারীশক্তির জয়

অবনী চতুর্বেদী (ডান দিকে), মোহনা সিং ও ভাবনা কান্থ

মধ্যপ্রদেশের ছোট্ট জেলার রাওয়ার বাসিন্দা অবনী। জন্ম ১৯৯৩ সালে। বাবা দিনকর চতুর্বেদী মধ্যপ্রদেশ সরকারি দফতরের ইঞ্জিনিয়ার। দেওলান্দ এলাকার স্কুলে পড়াশোনা শেষ করে রাজস্থানের বনস্থালি ইউনিভার্সিটি থেকে বিটেক করেন ২০১৪ সালে। এয়ার ফোর্স কমন অ্যাডমিশন টেস্টে পাস করে হায়দরাবাদের এযার ফোর্স অ্যাকাডেমিতে যোগ দেন অবনী। মেয়ের গর্বে গর্বিত বাবা জানিয়েছেন, পড়াশোনা ছাড়াও খেলাধূলায় প্রবল আগ্রহ অবনীর। দাবা, টেবিল টেনিসে অনেক পুরস্কার আছে তাঁর। ছবি আঁকতেও ভালবাসেন বায়ুসেনার এই দক্ষ পাইলট। মেয়ে একসময় কল্পনা চাওলা হতে চাইত, বলেছেন অবনীর মা সবিতা। রকেটে চেপে মহাকাশ জয় করতে চেয়েছিল। এখন ফাইটার জেট উড়িয়ে ভারতের আকাশ জয় করবে। অবনীর দাদাও ভারতীয় সেনাবাহিনীর অফিসার পদমর্যাদায় রয়েছেন।

আরও পড়ুন: প্রথম মহিলা ফ্লাইট কম্যান্ডার ভারতীয় বায়ুসেনার শালিজা ধামি, আকাশেও ভাঙছে বৈষম্যের সীমা

২৫ বছর বয়সে এয়ার ফোর্স অ্যাকাডেমি থেকে পাস করে বায়ুসেনায় ফাইটার পাইলট হিসেবে যোগ দেন ২০১৬ সালে। বিদার থেকে তৃতীয় পর্বের প্রশিক্ষণ শেষ করে সুখোই ও তেজসের মতো যুদ্ধবিমান ওড়ানোর দক্ষতা অর্জন করেন অবনী। তাঁর সঙ্গেই মোহনা সিং জিতারওয়াল ও ভাবনা কান্থকে ভারতীয় বায়ুসেনার ফইটার পাইলট হিসেবে ঘোষণা করা হয়। চলতি বছরেই রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের হাত থেকে নারীশক্তি পুরস্কার পান অবনী চতুর্বেদী।

আরও পড়ুন: ভারতীয় নৌসেনার প্রথম মহিলা পাইলট শিবাঙ্গী, নতুন ইতিহাস প্রতিরক্ষায়

রাজস্থানের সুরাটগড়ের এয়ারবেসে ভারতীয় বায়ুসেনার ২৩ নম্বর স্কোয়াড্রনের দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন অবনী। এবার অম্বালার গোল্ডেন অ্যারো স্কোয়াড্রনে রাফাল ওড়ানোর জন্যও নির্বাচন করা হয়েছে তাঁকে। “ভারতীয় বায়ুসেনায় ফাইটার পাইলট হতে চাইতাম। সেই সুযোগ পেয়েছি। রাফালের মতো ফাইটার জেট ওড়ানোর সুযোগ পেয়ে ধন্য। দেশের জন্য কাজ করব,” বলেছেন অবনী।

সমুদ্র ও আকাশে বৈষম্যের সীমা ভেঙেছে। নারী ও পুরুষে ভেদাভেদ না করে দক্ষতা ও সাহসের ভিত্তিতেই দক্ষ অফিসারদের বেছে নেওয়ার রীতি শুরু হয়েছে। ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রথম মহিলা পাইলটের দায়িত্ব পেয়েছিলেন লেফটেন্যান্ট শিবাঙ্গী স্বরূপ। সম্প্রতি যুদ্ধজাহাজেও মহিলা লেফটেন্যান্ট অফিসারদের নিয়োগ করা শুরু হয়েছে। সে দায়িত্ব পেয়ে নজির গড়েছেন সাব লেফটেন্যান্ট কুমুদিনী ত্যাগী ও সাব লেফটেন্যান্ট রীতি সিং।

বছর কয়েক আগেই যুদ্ধবিমান ওড়ানোর সুযোগ পেয়েছেন মহিলা এয়ার ফোর্স অফিসারেরা। প্রশংসার বন্যা বয়েছে সারা দেশে। ২০১৫ সালের প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডেও নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এক মহিলা অফিসার। নজির তৈরি হয়েছিল সেবার। প্রথম মহিলা ফ্লাইট কম্যান্ডার হিসেবে যোগ দিয়ে ইতিহাস তৈরি করেছিলেন শালিজা ধামি। গাজিয়াবাদের হিন্ডন এয়ারবেসের প্রথম মহিলা ফ্লাইট কম্যান্ডারও ছিলেন শালিজা। দেখিয়ে দিয়েছিলেন মহিলারা চাইলে  যুদ্ধবিমানের ককপিটেরও হাল ধরতে পারেন দক্ষতার সঙ্গেই।

You might also like