Latest News

মন্ত্রীর নাম করে চাকরির প্রতিশ্রুতি, ১৬ লক্ষ ঘুষ! টাকা ফেরত না দেওয়ায় মার তৃণমূল নেতাকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, মালদহ: অঙ্গন‌ওয়াড়ি সুপারভাইজারের (ICDS Supervisor) চাকরি (Job) দেওয়ার নাম করে ১৬ লক্ষ টাকা ঘুষ (Corruption) নেওয়ার অভিযোগ তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে। কিন্তু চাকরি আর হয়নি। এদিকে টাকা ফেরত চাইলে তা দিচ্ছিলেন না ওই তৃণমূল নেতা। এই নিয়ে বিবাদকে কেন্দ্র করে শুক্রবার দুপুরে হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপালের সামনে এক মহিলা ও পুরুষকে মারামারি (Chaos) করতে দেখা যায়। পুরুষটি ছিলেন তৃণমূল (TMC) কংগ্রেসের জয়হিন্দ বাহিনীর সম্পাদক জাহাঙ্গির আলম। আর মহিলাটির নাম পুতুল নেসা পারভিন।

দুই প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ও মহিলা মারামারি করছেন দেখে ছুটে আসে আসেপাশের লোকজন। তাঁরা এসে মারামারি থামান। পুলিশ এসে তৃণমূল নেতা জাহাঙ্গিরকে আটক করে নিয়ে যায়। এরপর থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন পুতুল ও তাঁর বোন হাজেরা খাতুন। তাঁদের দাবি, বছর তিন আগে অঙ্গন‌ওয়াড়ির সুপারভাইজারের চাকরি দেওয়ার নাম করে ১৬ লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন ওই তৃণমূল নেতা। বলেছিলেন, রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে যোগাযোগ আছে, চাকরি হয়ে যাবে।

চাকরির এমন নিশ্চিত প্রতিশ্রুতি শুনে জমি বিক্রি করে ১৬ লক্ষ টাকা জাহাঙ্গির আলমের হাতে তুলে দেন দুই বোন। কিন্তু তাঁদের একজনের‌ও চাকরি হয়নি। পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগে পুতুল জানান, বারবার টাকা চাইলেও ফেরত দেননি তৃণমূল নেতা। উল্টে গালিগালাজ করতেন। শুক্রবার হঠাৎ জানতে পারেন হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালের সামনে এসেছেন জাহাঙ্গির। সঙ্গে সঙ্গে এসে টাকা চান। পুতুল নেসা পারভিনের অভিযোগ, তিনি টাকা চাইতেই চড়-ঘুষি মারতে শুরু করে ওই তৃণমূল নেতা। তখন তিনিও থাপ্পর মারেন। সেই দেখে আসেপাশের লোকজন ছুটে আসেন।

এদিকে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল জয়হিন্দ বাহিনীর মালদহ জেলা সম্পাদক জাহাঙ্গির আলম। উল্টে তাঁর দাবি, “ডিভোর্সি পুতুল বিয়ে করার জন্য চাপ দিচ্ছিল। আমি কোন‌ও টাকা নিইনি। কিন্তু বিয়ে করতে রাজি হ‌ইনি বলেই হঠাৎ মারতে শুরু করে।”

যদিও ওই ঘটনার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, তাতে দেখা যায়, পুতুল প্রথমে তারপর মারেন। পাল্টা তাঁকে মারেন জাহাঙ্গির। এরপর‌ই লোকজন ছুটে এসে ওই তৃণমূল নেতাকে মারধর-ধাক্কাধাক্কি শুরু করে। শেষে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এদিকে এই ঘটনায় তৃণমূল দলকেই কাঠগড়ায় তুলেছে বিরোধীরা। যদিও শাসকদলের দাবি, এটা দলীয় বিষয় নয়। ব্যক্তির সঙ্গে ব্যক্তির ঝামেলা।

সীমান্তে মেলা ঘিরে বিএসএফের সঙ্গে জনতার হাতাহাতি, হেমতাবাদে উত্তেজনা

You might also like