Latest News

এক হাঁটু কাদা পেরিয়েই চলে যাতায়াত, প্রতিশ্রুতি মিললেও রাস্তা হয়নি হাওড়ার এই গ্রামে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, হাওড়া: একবার নয়, একাধিকবার প্রতিশ্রুতি মিলেছে। কিন্তু শেষ অবধি কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বছরের পর বছর ধরে এক হাঁটু কাদা (mud) ঠেলে জীবন হাতে নিয়ে যাতায়াত করছেন হাওড়ার (Howrah) বড়গাছিয়ার গ্রামের বাসিন্দারা। অভিযোগ, সেখানে মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মনিশ্চয়তা প্রকল্পের ফলক পুঁতে দেওয়া হয়েছে। সেই ফলকে ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে রাস্তা পাকা করার জন্য যাবতীয় এস্টিমেটও লিপিবদ্ধ করা রয়েছে। কিন্তু দু’বছর পার হতে চলল, কিন্তু রাস্তা এখনও পাকা হলো না।

পাকা রাস্তা না হওয়ায় বড় সমস্যায় গ্রামবাসীরা। স্কুল পড়ুয়ারা কাঁধে স্কুলের ব্যাগ চাপিয়ে এক হাঁটু কাদা ঠেঙিয়েই স্কুলে যাতায়াত করছে। গ্রামের মহিলাদের অভিযোগ, গ্রামে পানীয় জলের সুবন্দোবস্ত নেই। অন্যের বাড়ি থেকে পানীয় জল সংগ্রহ করতে হয় তাঁদের। দু’হাতে জলের বালতি ধরে সেই কাদামাটির রাস্তা পারাপার করতে হয়। ফলে চরম ভোগান্তিতে থাকা সেখানকার মানুষ ফলক দেখে আশায় বুক বেঁধেছিলেন। কিন্তু সেই আশাই সার!

দিঘার সমুদ্রে তলিয়ে গেলেন পর্যটক! নিম্নচাপের সতর্কতা কানেই তোলেননি

রাস্তা সংস্কারের কাজ না হওয়ার পেছনে কারণ জানালেন সেই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান তনুশ্রী দাস। তিনি বলেছেন, কাজ শুরু করার জন্য নাকি সেখানে ব্লক অফিস থেকে টেন্ডার ডাকা হয়। সেই মতো সেখানে কাজ শুরু করার জন্য প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু সেখান থেকে নাকি ইঁট চুরি হয়ে যায়। তাছাড়া খারাপ আবহাওয়ার কারণে সেখানে আর কাজটা করা সম্ভব হয়নি। এছাড়াও মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মনিশ্চয়তা প্রকল্পের কাজের বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে যে সমস্যা দেখা দিচ্ছে তাতে নাকি কোনও ভেন্ডার কাজও করতে চাইছেনা।

এদিকে এই গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি সদস্যা সোনালি মালিকের অভিযোগ, পঞ্চায়েতের কোনও কাজের বিষয়ে তাঁকে কিছুই জানানো হয় না। উল্লেখ্য, যে বুথ অঞ্চলে এই রাস্তাটি সেই ৩৫ নম্বর বুথ এলাকার তিনি সদস্য হলেও তাঁকে পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে কিছুই জানানো হয়না বলে অভিযোগ।

You might also like