Latest News

করোনায় অর্থনীতিতে ধাক্কা সামলাতে হাসিনার প্রায় ৬৮ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ

দ্য ওয়াল ব্যুরো : করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ভয়ে লকডাউন চলছে বাংলাদেশেও। এর ফলে অর্থনীতির যে ক্ষতি হবে, তা পূরণে নতুন চার দফা প্যাকেজ ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই প্যাকেজগুলি বাস্তবায়িত করতে খরচ হবে ৬৭ হাজার ৭৫০ কোটি বাংলাদেশি টাকা। এর আগে তিনি পাঁচ হাজার কোটি বাংলাদেশি টাকার আর একটি প্যাকেজ ঘোষণা করেন। সব মিলিয়ে কোভিড ১৯ মোকাবিলায় ৭২ হাজার ২৭৫ কোটি বাংলাদেশি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করলেন হাসিনা।

রবিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে সাংবাদিক বৈঠক করেন হাসিনা। তাতে সাংবাদিকদের কাছে ব্যাখ্যা করা হয়, অর্থনীতিতে করোনা মহামারীর কী প্রভাব পড়তে চলেছে। আগামী দিনে সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য সরকার কী ভাবছে। হাসিনা জানান, প্রথম প্যাকেজ অনুযায়ী, দেশে যে শিল্প ও পরিষেবা ক্ষেত্রগুলি কোভিড ১৯ মহামারীতে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তাদের সরকার দেবে ৩০ হাজার কোটি বাংলাদেশি টাকার ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল। এছাড়া আলাদাভাবে তাদের ঋণ দেবে বিভিন্ন কমার্শিয়াল ব্যাঙ্ক।

ব্যাঙ্ক ঋণ দেবে নয় শতাংশ হারে। ঋণগ্রহীতা শোধ করবেন ৪.৫ শতাংশ সুদ। বাকি ৪.৫ শতাংশ ব্যাঙ্কগুলিকে দেবে সরকার। ভর্তুকি হিসাবে সরকারের থেকে ওই অর্থ পাবে ব্যাঙ্কগুলি।

দ্বিতীয় প্যাকেজে বলা হয়েছে, ছোট ও মাঝারি শিল্পের জন্য সরকার ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল দেবে ২০ হাজার কোটি বাংলাদেশি টাকা। তাদেরও আলাদাভাবে ঋণ দেবে বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কগুলি। এক্ষেত্রেও সুদের হার হবে নয় শতাংশ। ঋণগ্রহীতা দেবেন চার শতাংশ সুদ। বাকি সুদ দেবে সরকার।

তৃতীয় প্যাকেজ অনুযায়ী রফতানি উন্নয়ন তহবিলে আরও বেশি অর্থ দেওয়া হবে। তাতে কাঁচামাল আমদানি করতে সুবিধা হবে। চতুর্থ প্যাকেজ অনুযায়ী বাংলাদেশ ব্যাঙ্ক ‘প্রি শিপমেন্ট ক্রেডিট রিফিন্যান্স’ নামে নতুন ঋণদান প্রকল্প চালু করবে।

হাসিনা জানান, অর্থনীতির পুনরুজ্জীবনে যে প্যাকেজ ঘোষণা করা হচ্ছে, তা মোট জাতীয় উৎপাদনের ২.৫২ শতাংশ। তাঁর দাবি, নতুন প্যাকেজগুলি যদি দ্রুত কার্যকর করা যায়, তা হলে অর্থনীতি আগের অবস্থায় ফিরে আসতে বেশি সময় লাগবে না।

You might also like