Latest News

Gyanvapi Mosque: বারাণসীতে‌ জ্ঞানবাপী মসজিদ-শৃঙ্গারগৌরী মন্দির মামলা দ্রুত শুনবে সুপ্রিম কোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বারাণসীর জ্ঞানবাপী মসজিদ (Gyanvapi Mosque) চত্বরে সমীক্ষার নির্দেশের চ্যালেঞ্জ করে মামলা হল সুপ্রিম কোর্টে। নিম্ন আদালতে ১৭ মে’র মধ্যে সমীক্ষা পেশ করার নির্দেশ দিয়েছে। তারপর আদালত মূল মামলা অর্থাৎ ওই মসজিদ চত্বরে থাকা ছোট হিন্দু মন্দিরে সারা বছর পুজাপাঠের অনুমতি দেওয়া হবে কিনা।

বৃহস্পতিবার বারাণসীর আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ। তাদের তরফে আজ প্রধান বিচারপতি এমভি রামানার বেঞ্চে আর্জি জানানো হয়, নিম্ন।আদালতের নির্দেশের উপর স্থগিতাদেশ জারি করে সমীক্ষার কাজ বন্ধ করে দিক সর্বোচ্চ আদালত। কিন্তু প্রধান বিচারপতি রামানা বলেন, আমরা বিষয়টি।কিছুই জানি না। না জেনে কীভাবে স্থগিতাদেশ দেব। আপনারা মামলা দায়ের করুন। আমরা দ্রুত শুনব আপনাদের আর্জি। বেঞ্চের বাকি সদস্যরা হলেন জেকে মাহেশ্বরী এবং হিমা কোহলি।

ওই মামলাকে কেন্দ্র করে বারাণসীতে অযোধ্যার ছায়া ঘনীভূত হওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না ওয়াকিবহাল মহল। বাবরি মসজিদ চত্বরে পূজার অনুমতি চেয়ে হওয়া আড়াইশো বছর আগের একটি মামলাই ছিল অযোধ্যা বিতর্কের মূলে। বারাণসীতে বিতর্ক, বিবাদের মূলে মসজিদ (Gyanvapi Mosque) এলাকায় থাকা হিন্দু মন্দিরে সারা বছর পুজো করার অনুমতি চেয়ে মামলা। সমীক্ষার কাজ নিরপেক্ষভাবে সারতে স্থানীয় আদালত তিনজন আইনজীবীকে কমিশনার হিসাবে নিয়োগ করেছে।

মসজিদ কমিটির আশঙ্কা, সমীক্ষার পর মসজিদ চত্বরে হিন্দুদের বছরভর পূজার্চনার অনুমতি দেওয়া হবে। মসজিদ কমিটির তরফে আইনজীবী হাফেজা আহমেদি বলেন, ১৯৯১ সালের উপাসনাস্থল (বিশেষ বিধান) আইনের ৪ নম্বর ধারায় স্পষ্ট বলা আছে ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্টে যে উপাসনাস্থল যে অবস্থায় ছিল, সেই অবস্থাই বহাল থাকবে। অবস্থান এবং ব্যবহারগত পরিবর্তন করা যাবে না। জ্ঞানবাপী মসজিদ (Gyanvapi Mosque) চত্বরে সমীক্ষার উদ্দেশ্য ওই আইনের সম্পূর্ণ পরিপন্থী। কারণ, ওখানে হিন্দুদের সারা বছর পূজা করার অনুমতি চেয়ে মামলা হয়েছে। সেই আর্জি মেনে নিম্ন আদালত পদক্ষেপ করছে। নিম্ন আদালত মসজিদ চত্বরে সমীক্ষার কাজের ভিডিও করার অনুমতি দিয়েছে। মুসলিম পক্ষের বক্তব্য, মসজিদ হল ওয়াকফ সম্পত্তি। সেখানে আদালতের তরফে ভিডিও করার অনুমতি বেআইনি নির্দেশ।

মূল মামলাটি করেছেন পাঁচ মহিলা। তারা গত বছরের মাঝামাঝি স্থানীয় আদালতে আবেদন করেন, জ্ঞানবাপী মসজিদ চত্বরে থাকা ছোট হিন্দু মন্দিরটিতে তাঁদের সারা বছর পুজাপাঠের অনুমতি দেওয়া হোক। এখন বছরে একবার সেই সুযোগ মেলে। সংবিধানে উল্লেখিত ধর্মীয় অধিকারের বিষয়টি উল্লেখ করে তাঁরা দাবি করেছেন, মন্দিরে পুজোপাঠ হিন্দুদের অধিকারের মধ্যে পড়ে।

শিবকুমারের জ্বলন্ত চিতার পাশে একা দাঁড়িয়ে জাকির হুসেন, ফের সম্প্রীতির ফ্রেম খুঁজে পেল দেশ

You might also like