Latest News

মোদীর নির্দেশে সাফাই অভিযান, সরকারি অফিস থেকে সরছে ধুলোয় ভরা ফাইলের পাহাড়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মাস শেষ হতে আর দিন চারেক বাকি। তার আগেই বড় সাফাই অভিযান সম্পন্ন হবে কেন্দ্র সরকারি অফিসগুলিতে। সম্প্রতি তেমনটাই নির্দেশ দিয়েছিলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী।

অক্টোবরের মধ্যেই কেন্দ্রের সব অফিসে ঝাড়পোছ (Files) করে ফেলতে বলেছেন নরেন্দ্র মোদী। বাতিল করে ফেলতে হবে যাবতীয় অপ্রয়োজনীয় ফাইল। খালি করতে হবে জায়গা। আর পরিসংখ্যান বলছে, যদি প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশকে যথাযথভাবে বাস্তবায়িত করা হয়, তবে খালি হয়ে যাবে বিশাল পরিমাণ জায়গা। রাষ্ট্রপতি ভবনের দ্বিগুণ জায়গা খালি হতে পারে ফাইল সাফাইয়ে, বলছে পরিসংখ্যান।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী সাফাই চলছে ২ অক্টোবর থেকে। এখনও পর্যন্ত শুধুমাত্র অপ্রয়োজনীয় ফাইল ফেলে দিয়েই নাকি খালি হয়েছে ৩ লক্ষ ১৮ হাজার স্কোয়ার ফিট জায়গা। ৭ লক্ষ ৩০ হাজার ফাইলের ঠাঁই হয়েছে জঞ্জালে পাত্রে।

এই প্রসঙ্গে এক আধিকারিক জানিয়েছেন, এই মাসের মধ্যে বাতিল করা জন্য মোট ৯ লক্ষ ৩১ হাজার ৪৪২টি ফাইল নির্দিষ্ট করা হয়েছিল। এখনও ৭৮ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। যুদ্ধকালীন প্রস্তুতিতে এই কাজ চলছে। রাষ্ট্রপতি ভবনের জমির পরিমাণ সর্বসাকুল্যে ২ লক্ষ স্কোয়ার ফিট। সাফাই অভিযান ঠিকঠাক চললে কেন্দ্র সরকারি অফিসগুলি থেকে চার লক্ষ স্কোয়ার ফিট এলাকা খালি করা শুধু সময়ের অপেক্ষা।

এখানেই শেষ নয়, চমকের আরও বাকি আছে। এই সাফাই অভিযান থেকে সরকারের কোষাগারেও টাকা যাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত জঞ্জাল নিষ্পত্তি করে ৪.২৯ কোটি টাকা আয় হয়েছে কেন্দ্রের।

কোন কোন মন্ত্রকে ফেলে দেওয়ার মতো অপ্রয়োজনীয় ফাইলের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি রয়েছে? দেখা গেছে, এই তালিকায় সবার আগে রয়েছে কেন্দ্রের পরিবেশ মন্ত্রক। এই মন্ত্রকের অফিসে মোট ৯৯ হাজার ফাইল বাতিল করা হয়েছে। এরপরেই আছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, রেলমন্ত্রক এবং সিবিআই ও সিবিডিটি। এদের অফিসে বাতিল করা ফাইলের সংখ্যা যথাক্রমে ৮১ হাজার, ৮০ হাজার এবং ৫০ হাজার। সরকারি আধিকারিকরা জানাচ্ছেন, অফিসে এই ধরণের সাফাই অভিযান রীতিমতো অভূতপূর্ব।

এছাড়া আরও একটি বড় কাজ চলছে। তা হল এতদিন ধরে কেন্দ্র সরকারি দফতরে যে সমস্ত কাজ ঝুলে আছে, সেগুলিকে ত্বরান্বিত করা। সূত্রের খবর, বিভিন্ন মন্ত্রকে প্রায় ১০ হাজার ২৭৩টি কাজ ঝুলে আছে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তার অগ্রগতি দেখতে চেয়েছে সরকার।

কী কী ধরণের ফাইল বাতিল করা হচ্ছে? জানা গেছে, তিনটি ক্যাটেগরির ফাইল রয়েছে। এ ক্যাটেগরির ফাইল সংরক্ষিত ১৯৪৭ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত। এরপর সেগুলি ন্যাশানাল আর্কাইভ অফ ইন্ডিয়াতে পাঠিয়ে দেওয়ার কথা। এছাড়া, বি ক্যাটেগরির ফাইল সাধারণত ১০ বছরের জন্য সংরক্ষণ করার কথা। আর সি ক্যাটেগরির ফাইলগুলির মেয়াদ তিন বছর। এই সমস্ত ফাইলকে গন্তব্যে পাঠানোর কাজ চলছে।

You might also like