Latest News

জঙ্গি হামলার জবাবে সার্জিকাল স্ট্রাইক চালিয়ে আমেরিকা, ইজরায়েলের পাশে ভারত, বললেন শাহ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: উরি, পুলওয়ামার সন্ত্রাসবাদী হামলার পাল্টা সার্জিকাল ও বিমান হামলা চালিয়ে প্রথম বিদেশনীতির (foreign policy) ছায়া থেকে প্রতিরক্ষা নীতিকে (defence policy) বের করে এনেছে সরকার (government)। সবার প্রথমে দেশ, (nation first) এই দৃঢ় মানসিকতার ফলে আমেরিকা, (usa) ইজরায়েলের (israel) সঙ্গে একই পংক্তিতে উঠে এসেছে ভারত (india)। বললেন অমিত শাহ (amit shah)।

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এক অনুষ্ঠানে বলেন, সার্জিকাল হামলা শুধুমাত্র সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জবাব ছিল না, দেশই সর্বপ্রথম, সরকারের এই স্পষ্ট অবস্থানও ফুটে উঠেছে তাতে। নাম না করে বিগত কংগ্রেস-ইউপিএ সরকারকে নিশানা করে শাহ বলেন, অতীতে  সন্ত্রাসবাদীরা দেশে অনুপ্রবেশ করে ভারতের মাটিতে আমাদের সেনা জওয়ানদের মেরে চলে যেত। কিন্তু এর পাল্টা  কোনও পদক্ষেপ করা হত না। এই প্রথম আমাদের প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেন, আমাদের সীমান্ত লঙ্ঘন করা সহজ কাজ হবে না। পাকিস্তানের নাম না করে তিনি বলেন, ভারতীয়রা যখন সার্জিকাল ও বিমান হানা চালিয়ে ওদের ঘরে ঢুকে প্রত্যাঘাত করে এল, তখন গোটা দুনিয়া অবাক হয়ে দিয়েছিল।

উরিতে ভারতীয় বিমানঘাঁটি সন্ত্রাসবাদী হামলার পর সার্জিকাল হামলা, পুলওয়ামায় গাড়িবোমা বিস্ফোরণের পর সন্ত্রাসবাদী শিবিরে বিমান হামলার প্রসঙ্গ টেনে ভারত একটা নজির স্থাপন করেছিল। এমন কৌশলগত পদক্ষেপ শুধুমাত্র আমেরিকা, ইজরায়েলই চালিয়েছে। কিন্তু সার্জিকাল ও বিমান হামলায় সুনিশ্চিত হয়েছে, এমন অপারেশন চালাতে সক্ষম দেশের তালিকায় ওদের পাশে তৃতীয় হিসাবে ভারতের নাম উঠবে। প্রতিরক্ষা নীতি বিদেশনীতির ছায়া থেকে বেরিয়ে এল। এই প্রথম হল এটা। আমরা স্পষ্ট বুঝিয়ে দিলাম,  আমরা প্রত্যেকের সঙ্গে শান্তি চাই, কারও সঙ্গে বিবাদ, বিদ্বেষ চাই না বটে, তবে নিজেদের সীমান্ত সুরক্ষিত রাখা আমাদের শীর্ষ অগ্রাধিকার। দুনিয়ার সর্বত্র আমরা স্পষ্ট ও জোরালো বার্তা দিতে পেরেছি যে, যদি শান্তি চাও, তবে আমাদেরও শান্তিতে থাকতে দিতে হবে। এজন্য দুনিয়ার কাছে ভারতের নতুন ধরনের স্বীকৃতি মিলেছে।

 

You might also like