Latest News

সুর বদল ইমরানের, মোদীর উদ্দেশে শান্তির বার্তা, গিভ পিস এ চান্স

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কিছুদিন আগেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সাংবাদিক বৈঠক করে বলেছিলেন, ভারত হানা দিলে উপযুক্ত জবাব দেবেন। কিন্তু রবিবার সুর বদলে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশে আহ্বান জানালেন, আসুন, শান্তির পথে দুই দেশের মধ্যেকার সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করা যাক। তাঁর প্রতিশ্রুতি, ভারত যদি উপযুক্ত তথ্যপ্রমাণ দিতে পারে, তিনি অবিলম্বে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন। এই প্রসঙ্গে তিনি প্রয়াত সংগীত শিল্পী জন লেননের বিখ্যাত গানের প্রথম লাইনটি উদ্ধৃত করেন, গিভ পিস এ চান্স।

শনিবার রাজস্থানে এক জনসভায় মোদী বলেন, ইমরান খান শপথ নেওয়ার পরে আমি তাঁকে ফোনে অভিনন্দন জানিয়েছিলাম। তাঁকে বলেছিলাম, আমাদের দুই দেশের মধ্যে ঝগড়া তো অনেক হল, আসুন এবার আমরা একজোট হয়ে দারিদ্র ও অশিক্ষার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করি। ইমরান আমাকে বলেছিলেন, মনে রাখবেন, আমি পাঠানের সন্তান। যা বলি তা করে দেখাই। পুলওয়ামা কাণ্ডের প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এবার তাঁকে প্রমাণ দিতে হবে, তিনি যা বলেন সত্যিই করে দেখান।

পুলওয়ামা কাণ্ডের পরে ভারত বলেছিল, কূটনৈতিক পথে পাকিস্তানকে আন্তর্জাতিক মহলে একঘরে করে দেওয়া হবে। তার পরে ৪০ টির বেশি দেশ পাকিস্তানের নিন্দা করেছে। রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদ থেকে সন্ত্রাসবাদী হামলার নিন্দা করে কড়া বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। চিনের মতো পাকিস্তানের মিত্র দেশ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য। কিন্তু তারাও ওই বিবৃতি আটকাতে পারেনি। আমেরিকা থেকেও নিন্দা করা হয়েছে পাকিস্তানের। সেকথা উল্লেখ করে মোদী বলেছিলেন, সারা বিশ্ব একযোগে সন্ত্রাসবাদী হানার নিন্দা করেছে। আমরা সর্বশক্তি দিয়ে জঙ্গিদের শাস্তি দেওয়ার চেষ্টা করছি। এবার আমরা বদলা নেবই। আমরা জানি কীভাবে সন্ত্রাসবাদকে ধ্বংস করতে হয়।

পুলওয়ামা হানার পরেও ইমরান খান বলেছিলেন, ভারত যদি প্রমাণ দিতে পারে ওই ঘটনায় যারা জড়িত তারা পাকিস্তানে রয়েছে, আমরা সঙ্গে সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। ভারত বলেছিল, একথার অর্থ হয় না। দীর্ঘদিন ধরেই পাকিস্তানে ঘাঁটি বানিয়ে রয়েছে জইশ ই মহম্মদের মতো জঙ্গি সংগঠন। তারা পুলওয়ামায় হানার পরে নিজেরাই বিবৃতি দিয়ে বলেছে, আমরা কাশ্মীরে সিআরপিএফ জওয়ানদের হত্যা করেছি। ইমরান আর কী প্রমাণ চান?

একটি মহলের ধারণা, ইমরান এখন ভারতের সঙ্গে যুদ্ধ করতে গেলে বিপদে পড়বেন। কারণ পাকিস্তানের আর্থিক অবস্থা শোচনীয়। যুদ্ধ করতে গেলে অবস্থা আরও খারাপ হবে। যুদ্ধ এড়ানোর জন্যই তিনি বাহাওয়ালপুরে জইশের সদর দফতরের দখল নিয়েছেন।

You might also like