Latest News

‘হর ঘর তিরঙ্গা’, আসন্ন স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে আহ্বান মোদী সরকারের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পরাধীন ভারতের মানুষ ততদিনে জেনে গেছেন স্বাধীনতা পাচ্ছেন তাঁরা। স্বাধীন ভারতের জাতীয় পতাকা কী হবে সেই নিয়ে আলোচনা চলছে তখন। দেশের তৎকালীন প্রথম সারির নেতারা প্রায় ততদিনে স্থির করে ফেলেছেন কী হবে পতাকার রূপ। সেই মতোই ১৯৪৭ সালের ২২ জুলাই গণ পরিষদের বৈঠকে চূড়ান্ত হয় এই সিদ্ধান্ত (Flag Adoption Day)।

আজ দেশজুড়ে পালন হচ্ছে জাতীয় পতাকা গ্রহণ দিবস। সেই উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) টুইট করেন। লেখেন, ঔনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করার সময় যাঁরা স্বাধীন ভারতের স্বপ্ন দেখেছিলেন তাঁদের অসামান্য সাহস ও প্রচেষ্টাকে আজ আমরা স্মরণ করি।

শুধু তাই নয় আজাদি কা অমৃতমহোৎসবের মধ্যেই এবার তেরঙা আন্দোলনকে ‘হর ঘর তিরঙ্গা’ কর্মসূচির কথা জানিয়েছেন। আগামী ১৩ থেকে ১৫ অগাস্ট সবার বাড়িতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার কথা বলেছেন তিনি। জানা গেছে, এই তিনদিন সরকারি ভবন, রাষ্ট্রায়ত্ত থেকে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার দফতর, রেস্তোরাঁ, শপিং মল, থানার মতো বহু স্থানেই জাতীয় পতাকা ওড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

ওপরে গেরুয়া, মাঝে সাদা এবং নীচে সবুজ। ঠিক মাঝখানে গাঢ় নীল রঙের অশোক চক্র। এই পতাকাটি তৈরি করেন পিঙ্গালি ভেঙ্কাইয়া। স্বাধীনতা সংগ্রামে ব্যবহৃত স্বরাজ পতাকার আদলেই তৈরি করা হয়েছিল ভারতের জাতীয় পতাকা।

তবে আমরা এখন যে জাতীয় পতাকা দেখতে পাচ্ছি তা একদিনে তৈরি হয়নি। ভারতের প্রথম জাতীয় পতাকা উত্তোলন হয় ১৯০৬ সালের ৭ অগাস্ট। কলকাতার গ্রিন পার্ক এলাকায়। সেই পতাকার সঙ্গে আজকের পতাকার কোনও মিল নেই। সেই পতাকা সবুজ, হলুদ ও লাল রংয়ের সমন্ময় তৈরি হয়েছিল। তারপর অনেক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে এসেছে আজকের জাতীয় পতাকার রূপ।

সেই ইতিহাসকেই স্মরণ করেই এবার দেশ জুড়ে নতুন কর্মসূচির সূচনা করতে চলেছে মোদী সরকার। শুধু ঘরে ঘরে পতাকা উত্তোলন নয়, আজ থেকেই সমস্ত সরকারি ওয়েবসাইটে তেরঙ্গার ছবি লাগানোর কথা বলা হয়েছে।

টানা চারদিন অচল সংসদ, বিরোধীদের মোকাবিলায় মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক মোদীর

You might also like