Latest News

‘আমার শরীরে আমার অধিকার’, দাবি রত্নাবলীদের! ‘টেক দ্যাট জেভিয়ার্স’ হ্যাশট্যাগে উত্তাল ফেসবুক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিকিনি যে এমন বিদ্রোহের আগুন জ্বেলে দেবে কে জানত! জেভিয়ার্স কাণ্ডের (St. Xavier’s University) পর সোশ্যাল মিডিয়ায় বিকিনি (bikini) ক্রমশ সংক্রামক হয়ে উঠছে। জল, টু পিস, ক্ষোভের আগুন ক্রমশ দাউদাউ হচ্ছে। উদ্দেশ্য একটাই- গোঁড়ামিতে আঘাত হানা। গত দু’দিন ধরে ‘টেক দ্যাট জেভিয়ার্স’ (#takethatxaviers) হ্যাশট্যাগে রীতিমত উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া (facebook)। কে নেই সেই তালিকায়! মানসিক স্বাস্থ্য কর্মী রত্নাবলী রায় (Ratnaboli Ray), মনোবিদ পয়োষ্ণি মিত্র (Payoshni Mitra), প্রেসিডেন্সির প্রাক্তনী তথা একদা এসএফআই নেত্রী অনিশা পাল (Anisha Pal), অভিনেতা বিদীপ্তা চক্রবর্তী (Bidipta Chakraborty) প্রমুখরা।

বুধবার ফেসবুকে এই প্রচার অভিযান শুরু করেন রত্নাবলী। স্যুইমস্যুট পরা নিজের একটি ছবি পোস্ট করে তিনি লেখেন, ‘কাঁচকলা। কাঁচকলা। ব্যক্তি শিক্ষকের পোশাক ছাত্রছাত্রীদের কাছে বিড়ম্বনার বিষয় হয় না, এটি আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতায় জানি। যে কর্তৃপক্ষ এই কথা বোঝেন না, তাঁদের শিক্ষার পরিধি বাড়ানো দরকার।’

এখানেই না থেমে রত্নাবলী আরও বলেন, ‘সেন্ট জেভিয়ার্স ইউনিভার্সিটির এই নিন্দনীয় পদক্ষেপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সবাই নিজের স্যুইমস্যুট পরা ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করুন।’ সবশেষে লেখা হ্যাশট্যাগ ‘টেক দ্যাট জেভিয়ার্স’।

রত্নাবলীর এই আহ্বানের পরেই এগিয়ে আসেন নেটিজেনরা। নিজেদের বিকিনি কিংবা স্যুইমস্যুট পরা ছবি পোস্ট করে এই প্রতিবাদে সামিল হন অনেকেই।

সেন্ট জেভিয়ার্স ইউনিভার্সিটির উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে পিটিশন জমা সোশ্যাল মিডিয়ায়

মনোবিদ পয়োষ্ণি মিত্র তাঁর মা ও মেয়ের সঙ্গে সমুদ্রস্নানের সময় তোলা একটি ছবি পোস্ট করেন ফেসবুকে। সেখানে লেখেন, ‘স্যুইম স্যুটে আমরা তিন প্রজন্ম। আমরা সোশ্যাল মিডিয়াতেও নিজেদের ছবি পোস্ট করতে ভালোবাসি! শীঘ্রই আরও ছবি পোস্ট করব।’ একইসঙ্গে তিনি রত্নাবলী রায়কে ধন্যবাদও জানান, যিনি এই প্রচার শুরু করেছিলেন।

এখানেই শেষ নয়, নিজের বিকিনি পরা ছবি পোস্ট করেন প্রেসিডেন্সির প্রাক্তনী তথা একদা এসএফআই নেত্রী অনিশা পাল। ফ্রেঞ্চ কবি হেলেন সেক্সাসের একটি লেখা কোট করে তিনি লেখেন, ‘দেহের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপানো মানেই দমবন্ধ হয়ে আসা, বাকস্বাধীনতাও কেড়ে নেওয়া। নিজের কথা লিখুন, আপনার শরীরের ভাষাও যেন শোনা যায়।’ এরপর তিনি লেখেন, ‘রত্নাবলী রায়কে ধন্যবাদ, এই বার্তাটি স্পষ্ট করে সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য।’ শেষে হ্যাশট্যাগ দিয়ে লেখা ‘টেক দ্যাট জেভিয়ার্স’।

পিছিয়ে নেই টলিউডও। এগিয়ে আসেন বিদীপ্তা চক্রবর্তী ও তাঁর বড় মেয়ে মেঘলা দাশগুপ্তও। হ্যাশট্যাগ দিয়ে লেখেন, ‘মাই বডি মাই রাইটস’ অর্থাৎ আমার শরীরে আমার অধিকার। এরপর ধন্যবাদ জানান রত্নাবলী রায় ও পয়োষ্ণি মিত্রকে। সবশেষে রত্নাবলীর কথা কোট করে লেখেন, ‘সেন্ট জেভিয়ার্স ইউনিভার্সিটির এই নিন্দনীয় পদক্ষেপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সবাই নিজের স্যুইমস্যুট পরা ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করুন।’ সবশেষে লেখা হ্যাশট্যাগ ‘টেক দ্যাট জেভিয়ার্স’।

ক্ষোভের আগুনের এই গনগনে আঁচ সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছে। নিজের শরীরে যে অন্য কারও অধিকার নেই, সেই কথাই ঠারেঠোরে বুঝিয়ে দিচ্ছেন নেটিজেনরা। এই গোঁড়ামি দূর করতে সাধারণ মানুষের ক্ষোভের আগুন যে ভবিষ্যতে আরও অনেক দূর ছড়াবে, তা বলাই বাহুল্য।

You might also like