Latest News

Exclusive: তিন মাস আগে হইচই হয়েছিল, পরেশের মেয়ে চাকরিটা পেয়েই গেল মেখলিগঞ্জের স্কুলে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, কোচবিহার:  পেরিয়ে গিয়েছে তিন মাসেরও বেশি সময়। ভুলে গিয়েছেন মানুষ। চাপা পড়ে গিয়েছে যাবতীয় বিতর্ক। তাই আজ আর পাঁচজনের মতোই নিঃশব্দে মেখলিগঞ্জের ইন্দিরা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষিকা পদে যোগ দিলেন তিনি। তিনি ফরওয়ার্ড ব্লক ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারী। দ্য ওয়াল সবার প্রথম (Exclusive) এই খবর জানিয়েছিল। এ দিন ইন্দিরা উচ্চবিদ্যালয়ের  প্রধান শিক্ষিকা রঞ্জনা রায় বসুনিয়া জানান, আজ কাজে যোগ দিয়েছেন অঙ্কিতা। ই মেলে অঙ্কিতার যোগদানের কাগজ পেয়েছেন বলেও জানান তিনি।

অগস্ট মাসের শেষে তপসিয়ায় তৃণমূল ভবনে দলের মহাসচিব, তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের পৌরোহিত্যে শাসক দলে যোগ দিয়েছিলেন কোচবিহারের ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা তথা বাম জমানার খাদ্য মন্ত্রী পরেশ অধিকারী। তার বাহাত্তর ঘণ্টার মধ্যেই কোচবিহারে স্কুল সার্ভিস কমিশনের শিক্ষক নিয়োগের ‘ওয়েট লিস্টে’ নাম উঠে ছিল পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর। ব্যাপারটা কি ভুলবশত? নাকি ভুল সংশোধন! কিংবা দুটোর কোনওটাই নয়, তার জবাব অবশ্য দেননি স্কুল সার্ভিস কমিশন বা পরেশবাবু।

গোটা বিতর্কের সূত্রপাত রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক নিয়োগের জন্য স্কুল সার্ভিসের মেধা তালিকাকে কেন্দ্র করে। কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল, স্কুল সার্ভিসে নিয়োগের ক্ষেত্রে আগে মেধা তালিকা প্রকাশ করতে হবে। সেই মোতাবেক পিডিএফ ফরম্যাটে মেধা তালিকা প্রকাশ করা বাধ্যতামূলক। কোচবিহারে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক নিয়োগের জন্য এসএসসি তালিকা প্রকাশ হয়েছিল। তফসিলি জাতিভুক্তদের জন্য মেধা তালিকার ওয়েট লিস্টে প্রথম স্থানে নাম ছিল ববিতা বর্মনের। যাঁর রোল নম্বর হল, ২২২২১৬২৭০০০৭২০। ববিতা বর্মনের পর দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে ছিল লোপামুদ্রা মণ্ডল ও ছায়া রায়ের নাম।

অথচ পরবর্তীতে এসএসসি-র ওয়েবসাইটে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের তফসিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত আসনের ওয়েট লিস্টে দেখা যায় ববিতার নাম চলে গিয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। প্রথম স্থানে রয়েছে পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর নাম। উল্লেখযোগ্য হল, এক দিন আগে পর্যন্ত তালিকায় নামই ছিল না অঙ্কিতার। তা ছাড়া ওয়েট লিস্টে থাকা প্রার্থীদের নাম ক্রমশ উপরের দিকে ওঠার কথা। অর্থাৎ কোনও শূন্যপদ তৈরি হলে ওয়েট লিস্টে প্রথম স্থানে থাকা প্রার্থী সুযোগ পাবেন। তখন দ্বিতীয় স্থানাধিকারীর নাম প্রথম স্থানে উঠে আসবে। সেই শর্তে কোনও ভাবেই ববিতার নাম দ্বিতীয় স্থানে যাওয়ার কথা নয়।

স্বাভাবিক ভাবেই সন্দেহ ও প্রশ্ন দানা বাঁধতে শুরু করে। এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান শর্মিলা মিত্রর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছিল। তিনি ফোন ধরেননি, টেক্সট মেসেজের জবাবও দেননি। ফোন ধরেননি পরেশবাবু ও তাঁর মেয়েও।

পরবর্তীতে তালিকায় নাম থাকা চাকরি প্রার্থীদের ইন্টারভিউয়ের সময়েও অঙ্কিতাকে দেখা যায়নি বলে অভিযোগ। তবে হঠাৎ করে মেধাতালিকায় নাম ওঠা অঙ্কিতাকে শনিবার মেখলিগঞ্জে তাঁর বাড়ির পাশের স্কুলে যোগ দিতে দেখে মুচকি হেসেছেন অনেকেই। অর্থাৎ শুধু চাকরি পাইয়ে দেওয়াই নয় বাড়ির পাশের স্কুলে পোস্টিং দিয়ে, তিনি যে ‘প্রিভিলেজড’ বুঝিয়ে দেওয়া হল তাও।

ওই করতেই তো তৃণমূলে গিয়েছেন’, পরেশকে তোপ তাঁর প্রাক্তন ‘কমরেডদের’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দিদিমণি হয়ে গেলেন অঙ্কিতা! নিঃশব্দে। চুপুচুপি।

বামফ্রন্ট সরকারের খাদ্যমন্ত্রী তথা ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা পরেশ অধিকারীর মেয়ে শনিবার রাষ্ট্রবিজ্ঞানের দিদিমণি হয়ে চাকরিতে যোগ দিয়েছেন মেখলিগঞ্জের ইন্দিরা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে। আর সব দেখে পরেশবাবুর এককালের কমরেডরা বলছেন, “ওই করতেই তো তৃণমূলে ভিড়েছে!” ….আরও কী বললেন পড়ুন।

তৃণমূলে নাম লেখাতেই প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রীর মেয়ের নাম উঠল স্কুল সার্ভিসের তালিকায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ব্যাপারটা কি ভুলবশত? নাকি ভুল সংশোধন! কিংবা দুটোর কোনওটাই নয়! হয়তো এর ভিতরে নিহিত আছে ভিন্নতর রহস্য! আরও পড়ুন

পরেশের মেয়ের নাম লিস্টে ছিল না, প্রমাণ আছে? স্কুল সার্ভিস নিয়ে রাগত জবাব পার্থর

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তৃণমূলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের পৌরোহিত্যে তিন দিন আগে বাংলার শাসক দলে যোগ দিয়েছিলেন বাম জমানার খাদ্যমন্ত্রী পরেশ অধিকারী। তার পর কিছুটা ম্যাজিকের মতই রাতারাতি তাঁর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর নাম উঠে যায় স্কুল সার্ভিস কমিশনের মেধা তালিকার ওয়েট লিস্টে! তাও আবার যে সে ভাবে নয়! মেয়েদের ওয়েট লিস্টে ফার্স্ট গার্ল হয়ে যান অঙ্কিতা! অথচ তার চব্বিশ ঘন্টা আগে যে তালিকা প্রকাশ হয়েছিল, তাতে কোথাও ছিল না অঙ্কিতার নাম। আরও পড়ুন

পরেশের মেয়ের শিক্ষিকার চাকরিতে জালিয়াতির অভিযোগ, সিবিআই তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

You might also like