Latest News

ভোট ঘোষণা সত্ত্বেও প্রকাশ্যে পুজো-অনুদান দেওয়ার ঘোষণা, ব্যাখ্যা চাইল কমিশন

দ্য ওয়াল বুরো: ভবানীপুরসহ তিন বিধানসভা আসনে ভোট ঘোষণা হয়ে যাওয়ার পরও পুজোর জন্য ক্লাবগুলিকে সরকারি অনুদান দেওয়ায় অনুষ্ঠান করা হয়েছে। এই অভিযোগ নিয়ে নির্বাচন কমিশনে গিয়েছে রাজ্য বিজেপি। সূত্রের খবর, তাদের অভিযোগ নিয়ে নবান্নের (Nabanna) কাছে ব্যাখ্যা তলব করেছে নির্বাচন কমিশন (EC)।

পড়ুয়া-শিক্ষক অনুপাত হাইকোর্টে জানাতেই পারল না রাজ্য

ভবানীপুর থেকে উপনির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৩০ সেপ্টেম্বর ভোটের দিন ঘোষণা করেছে কমিশন। এই পরিস্থিতিতে ক্লাবগুলিকে আর্থিক সাহায্যের কথা বলে নির্বাচনী বিধিভঙ্গ করা হয়েছে, এমনটাই অভিযোগ উঠেছিল গেরুয়া শিবিরের তরফ থেকে। তারা এই অভিযোগ নিয়ে কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিল। তারপরেই নবান্নের কাছে এর ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে বলে খবর।
যদিও এ নিয়ে নবান্নের থেকে সরকারিভাবে কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। তবে স্বরাষ্ট্র দফতরের এক উচ্চ আধিকারিক জানান, বিষয়টা আমরা শুনেছি। তবে এখনও এই সংক্রান্ত কোনও কাগজ আমার হাতে আসেনি। কমিশন চিঠি পাঠিয়েছে কিনা তা দেখতে হবে।

মঙ্গলবার নেতাজি ইনডোরে পুজো কমিটির বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। রাজ্য ও কলকাতা পুলিশের তত্ত্বাবধানে এই বৈঠক থেকেই মুখ্যসচিব জানিয়েছিলেন পুজো উদ্যোক্তা ক্লাবগুলিকে এবছরও আগের বারের মতো আর্থিক অনুদান দেওয়া হবে। ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান পাবে ক্লাবগুলি। মুখ্যসচিবের এই ঘোষণার সময় মঞ্চে ছিলেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরে মঞ্চে ওঠেন তিনি।
নির্বাচন কমিশন সূত্রের খবর, ওই বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতি এবং মুখ্যসচিবের ঘোষণার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। নবান্নে স্বরাষ্ট্র দফতরকেই সেই চিঠি পাঠানো হয়েছে। কারণ মঙ্গলবারের বৈঠকের আয়োজক ছিল পুলিশ। আর পুলিশ স্বরাষ্ট্র দফতরের অধীন।

কমিশনের নির্বাচনী আদর্শ নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী, ভোট ঘোষণার পর মন্ত্রীরা কোনো সরকারি অনুষ্ঠানে যেতে পারেন না। তারা ঘরোয়া বৈঠক করতে পারেন মাত্র। অফিসাররাও প্রকাশ্যে কোনও সরকারি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারেন না। ঘরোয়া অনুষ্ঠান, মিটিংয়ে অফিসাররা যেতে পারেন।

মঙ্গলবার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠান ছিল পুলিশের। ফেসবুকে সেই অনস্থান লাইভ সম্প্রচার হয়। মিডিয়াও ছিল অনুষ্ঠানে। তবে সরকারিভাবে কোনও আমন্ত্রণপত্র বিলি করা হয়নি।

এ বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র কুণাল ঘোষের বক্তব্য, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনও বিধিভঙ্গ করেননি। কারণ তিনি এখনও ভবানীপুরের প্রার্থী হিসেবে নমিনেশন ফাইল করেননি। আর পুজোয় ক্লাবগুলিকে অনুদান দেওয়া নতুন কিছু নয়। আগেও দেওয়া হয়েছে। সুতরাং বিধিভঙ্গের কোনও জায়গাই নেই।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like