Latest News

প্রবীণ আর দৃষ্টিহীনদের জন্যও সাজছে মণ্ডপ! নির্ঝঞ্ঝাটে ঠাকুর দেখবেন তাঁরাও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সারা বছর বাংলার মানুষ অপেক্ষা করে থাকেন পুজোর (Durga Pujo 2022) এই কয়েকদিনের জন্য। সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে উপেক্ষা করে এই চার পাঁচদিন আনন্দে মেতে থাকতে চান সকলেই। খাওয়া দাওয়া, ঘোরাঘুরি, ঠাকুর দেখার— মধ্যে দিয়েই আনন্দে ভেসে থাকতে চান। কিন্তু প্রবীণ মানুষ বা বিশেষভাবে সক্ষম মানুষদের মনে ঠাকুর দেখার ইচ্ছা থাকলেও ভিড়ের কাছে হার মানেন তাঁরা। তবে এবার এইসব মানুষদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করছে এনআইপি এনজিওর- ফোরাম ফর দুর্গোৎসব।

দৃষ্টিহীন, বিশেষ ভাবে সক্ষম (Physically Handicapped) ও প্রবীণ নাগরিকদের (Senior Citizens) জন্য বিশেষ পুজো পরিক্রমার ব্যবস্থা করেছে এই সংস্থায়। তাদের এই মহৎ কাজে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে সাইনি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, মমতা সুমিত বিনানী ফাউন্ডেশন, রোটারি ক্লাব অফ ক্যালকাটা ওল্ড সিটি। মোট ২৫০ টি পুজো কমিটি এতে অংশ নেবে। প্রবীণ নাগরিক ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্নদের জন্য থাকবে পৃথক বন্দোবস্ত। দৃষ্টিহীনদের জন্য থাকবে ব্রেইল ডিসপ্লে স্ট্যান্ড।

এই উদ্যোগ প্রসঙ্গে এনআইপি এনজিওর প্রধান পৃষ্ঠপোষক এবং এমএসএমই ডেভেলপমেন্ট ফোরাম ডব্লিউবি-এর সভাপতি মমতা বিনানি বলেন, “প্রতিবন্ধকতা একজন ব্যক্তির বৈশিষ্ট্য নয়, বরং সামাজিক পরিবেশ দ্বারা সৃষ্ট পরিস্থিতির একটি জটিলতা। একটু চিন্তাশীলতা প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের একই অনুভূতি এবং আনন্দের সঙ্গে উৎসব উদযাপন করার সুযোগ দিতে পারে।”

অনুষ্ঠান সম্পর্কে বলতে গিয়ে শ্রী. হাজরা পার্ক দুর্গোৎসব কমিটির যুগ্ম সম্পাদক সায়ন দেব চট্টোপাধ্যায় বলেন, “এই পুজোর মরসুমের শুরুতে, যখন সকলেই উৎসবের আনন্দে সামিল হতে চায় তখন আমরা মানবতার তাগিদ থেকেই একটি অনন্য লড়াইকে সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

এই বিশেষ ব্যবস্থার চালু করার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বহু বিশিষ্ট মানুষ। ছিলেন রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, কলকাতা ওল্ড সিটির রোটারি ক্লাবের প্রাক্তন সভাপতি কল্যাণ ভৌমিক, দুর্গোৎসব ফোরামের দেবজ্যোতি রায় সহ অনেকে।

গঙ্গা গ্রাসে বারবার ঠিকানা বদলেছে, তবুও ‘ভাঙনের দুর্গা’ নিয়ে মেতে উঠেছে মানিকচক

You might also like