Latest News

স্যানিটারি ন্যাপকিনের মাদক থেকে আরিয়ানের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট, যেন খুলছে কোনও রহস্যগল্পের মোড়ক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মুম্বই থেকে গোয়াগামী প্রমোদতরীতে চলছিল মাদক সেবন (drugs)। সেখান থেকেই সম্প্রতি নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)-র হাতে গ্রেফতার হয়েছেন শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান, মুম্বইয়ের মডেল মুনমুন ধামেচা এবং আরিয়ানের বন্ধু আরবাজ মার্চেন্ট। আর তার পরেই সারা দেশের নজর সেই দিকেই। এই কাণ্ডে এখনও পর্যন্ত মোট গ্রেফতার হয়েছেন ১৯ জন। বাজেয়াপ্ত হয়েছে মোট ১৩ গ্রাম কোকেন, ২১ গ্রাম চরস, ২২টি এমডিএমএ-র পিল, ৫ গ্রাম এমডি।

এত অবধি ঘটনাক্রম সকলের জানা হলেও, এনসিবি সূত্রের খবর, তদন্ত যত এগোচ্ছে, ততই যেন দানা বাঁধছে রহস্য। প্রমোদতরীতে মাদক উদ্ধার, শাহরুখ পুত্রের উপস্থিতি, ক্রিপ্টোকারেন্সি-র মাধ্যমে ডার্ক ওয়েব থেকে মাদক ক্রয়, আরবাজের জুতো থেকে ড্রাগ, মুনমুন ধামেচার স্যানিটারি প্যাড থেকে নিষিদ্ধ মাদক উদ্ধার– থ্রিলার উপন্যাসের চেয়ে কোনও অংশে কম নয় এই তদন্তের প্রতিটি অধ্যায়। এনসিবি অফিসাররাই বলছেন, প্রতি মুহূর্তে যেন নতুন চমক আসছে!

জোর করে মাংসর দোকান বন্ধ করা নিয়ে অশান্তি, উত্তরপ্রদেশে সক্রিয় বজরং দল

এনসিবি সূত্রের খবর, মুনমুন ধামেচা যেভাবে তাঁর স্যানিটারি ন্যাপকিনের ভিতরে ড্রাগ লুকিয়েছিলেন, তা বোঝা যে কারও অসাধ্য ছিল। একটি ফুটেজে দেখা গেছে, ইনটেলিজেন্স অফিসাররা কীভাবে প্যাডটি থেকে তার ভেতরের জিনিসপত্রের সঙ্গে ওই ড্রাগ বার করে আনছেন। আরবাজ মার্চেন্ট আবার ড্রাগ লুকিয়েছিলেন তাঁর জুতো-মোজার ভিতরে। মুনমুন এবং আরবাজ এই করেই পার পেয়ে গেছিলেন সিকিউরিটির বাধা। তবে শেষ রক্ষা হয়নি।

এসবের পাশাপাশি ধৃতদের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটও খতিয়ে দেখছে এনসিবি। তাতেও সামনে এসেছে, আরবাজ কিছু ড্রাগ আরিয়ানকেও দিয়েছিলেন।

এদিকে শুক্রবার দ্বিতীয় বারের জন্য খারিজ হয়ে গিয়েছে আরিয়ানের জামিনের আবেদন। মুম্বইয়ের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট জানিয়েছে, এনসিবি-র দায়ের করা রিপোর্ট অনুযায়ী ধৃতদের বিরুদ্ধে মাদক নেওয়া, মাদক কেনা ও তা বিক্রি করার মতোও অভিযোগ রয়েছে। ধৃতদের অনেকের কাছ থেকেই অনেক মাদক উদ্ধারও হয়েছে। অপরাধগুলি প্রমাণিত হলে সাজা তিন বছরের বেশি হতে পারে। সব দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তাই এখনই জামিন নয়।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like