Latest News

Covid: কোভিড কেড়েছে কত প্রাণ? পাঁচ রাজ্যের তথ্যেও প্রশ্নের মুখে মোদী সরকারের দাবি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারত সরকারের দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, ২০২০-কে কোভিডে (Covid) মারা গিয়েছেন চার লাখ ৪০ হাজার, ৭৪৩জন। অন্যদিকে, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-র দাবি, বিশ্বের মধ্যে ভারতেই কোভিডের বলি সর্বাধিক এবং ওই দুই বছরে মারা গিয়েছেন আনুমানিক ৪৭ লাখ মানুষ।

করোনার থাবায় মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে যখন বিতর্ক তুঙ্গে তখন পাঁচ রাজ্যের এই সংক্রান্ত পরিসংখ্যানে নতুন করে প্রশ্নের মুখে পড়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দাবি। উত্তরপ্রদেশ, কেরল, তেলেঙ্গানা, উত্তরাখণ্ড এবং দিল্লি দাবি করেছে, ২০১৯-এর তুলনায় পরের বছর অর্থাৎ ২০২০-তে নথিভুক্ত মৃত্যুর সংখ্যা কমে গিয়েছে।

২০২০-তে করোনায় (Covid) মৃত্যুর ঘটনা সবচেয়ে বেশি ছিল। এমন কোনও পাড়া, গ্রাম বাদ নেই যেখানে কোভিড কারও প্রাণ কাড়েনি। হাসপাতালে বেড না পেয়ে মারা গিয়েছেন বহু মানুষ। আবার হাসপাতালে গিয়ে অক্সিজেনের অভাবেও প্রাণ গিয়েছে অনেক নাগরিকের। আলোচ্য পাঁচ রাজ্যের মধ্যে উত্তরপ্রদেশ ও কেরলে মৃত্যু নিয়ে তখনই বিতর্ক দানা বেঁধেছিল। যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে করোনায় দিনে এত মানুষ মারা যাচ্ছিলেন যে শ্মশানে সৎকার করার সুযোগ না পেয়ে নদীর ধারে গণচিতা সাজাতে হয়। বহু দেহ নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

সেই উত্তরপ্রদেশে সরকারি খাতায় ২০১৯-এ নয় লাখ ৪৪ হাজার মানুষের মৃত্যু নথিভুক্ত হয়েছে। সেখানে পরের বছর কোভিডের (Covid) সময়ে নথিভুক্ত মৃত্যুর সংখ্যা আট লাখ ৭৩ হাজার।

সংক্রামক ব্যধির মারণ থাবার সময়ে কী করে নথিভুক্ত মৃত্যুর সংখ্যা কমে গেল সে প্রশ্নের সদুত্তর মিলছে না। যদিও করোনায় মৃতদের সৎকার সরকারি উদ্যোহে হওয়ায় মৃত্যু নথিভুক্ত হওয়া ছিল বাধ্যতামূলক। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে করোনায় মৃত্যুকে কমিয়ে দেখানোর কারণেই কি এমন অবাক কাণ্ড ঘটতে পারল?

শুধু উত্তরপ্রদেশ নয়, কেরল-সহ আরও চার রাজ্যে একই ঘটনা ঘটেছে। সেখানেও দেখা যাচ্ছে নমুনা সমীক্ষা অনুযায়ী যত মানুষের মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে বলে অনুমান করা হয়েছিল, নথিভুক্ত মৃত্যুর সংখ্যা তার চাইতে অনেকটা কম।

তবে পরিসংখ্যান নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, করোনায় (Covid) মৃতদের বেশিরভাগের পরিবার ইতিমধ্যে বিমার অর্থ হাতে পেয়েছে। সরকারি হিসাব মতো, ২০২০-তে দু লাখ ২৭ হাজার ২৬৮জন মৃতের পরিবার জীবন বিমার ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়ে গিয়েছেন।

দেশে এখন ভারতীয় জীবন বিমা নিগম ছাড়াও আরও ২৩টি ছোট-বড বেসরকারি বিমা কোম্পানি ব্যবসা করে। এছাড়া, জীবন বিমা নিগমের মাধ্যমে পরিচালিত হয় প্রধানমন্ত্রী জীবন জ্যোতি বিমা যোজনা। ওই যোজনাতে কোভিডে মৃতদের পরিবারকে বিমা-ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে যা ওই দু-লাখ ২৭ হাজার ২৬৮ জনের হিসাবের মধ্যে ধরা আছে। অর্থাৎ, ওই বছর মৃতদের হাজার কুড়ি মৃতের পরিবার এখনও ক্ষতিপূরণের টাকা হাতে পায়নি।

এ পর্যন্ত বিমা বাবদ করোনায় মৃতদের পরিবারকে ১৭ লাখ ৩৬২ কোটি টাকা দিয়েছে বিমা কোম্পানিগুলি। সেই হিসাবে পরিবার পিছু পেয়েছে সাত লাখ ৬৩ হাজার ৯৬৫ টাকা। বিমা কোম্পানিগুলির সূত্রে পাওয়া মৃতের তথ্য ভারত সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।

জোড়াসাঁকোর রান্নার বিশেষ সেলিব্রেশন শহরে! কোথায় মিলবে পোস্তর বড়া, টার্কিশ কাবাব, পাঁঠার বাংলা

You might also like