Latest News

জেল থেকেই প্রতারণা, ধনকুবেরের স্ত্রীর থেকে কয়েকশ কোটি হাতিয়ে নিল দুষ্কৃতী

দ্য ওয়াল ব্যুরো : টাকা তছরুপের দায়ে ২০১৯ সাল থেকে জেলে আছেন প্রাক্তন ধনকুবের শিবিন্দর সিং (Shibinder Singh)। তিনি একসময় র‍্যানব্যাক্সি কোম্পানির অংশীদার ছিলেন। শিবিন্দর জেলে যাওয়ার পরে তাঁর স্ত্রী অদিতি স্বামীর জামিনের চেষ্টা করতে থাকেন। এইসময় তাঁর কাছে একটি ফোন আসে। ফোনের ওপার থেকে একটি কণ্ঠ তাঁকে বলে, সে সরকারি অফিসার। নির্দিষ্ট অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে সে শিবিন্দরকে জামিন পাইয়ে দিতে পারে।

ফোনে ওই কণ্ঠটি দাবি করে, তার সঙ্গে স্বরাষ্ট্রসচিব, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আরও অনেক ক্ষমতাশালী লোকের যোগযোগ আছে। অদিতি তাকে বিশ্বাস করেন। তিনি ফোনের ওপারে থাকা ব্যক্তিকে বলেন, তাঁর সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেখা করিয়ে দিতে হবে। সে বলে, অদিতি যদি তার কথামতো কাজ করেন, তাহলে নিশ্চয় দেখা করিয়ে দেবে। পরে অদিতি তার কথামতো একটি নির্দিষ্ট জায়গায় টাকা পৌঁছে দেন।

কয়েকমাস পরে অদিতি বুঝতে পারেন, তিনি প্রতারকের পাল্লায় পড়েছেন। ততদিনে তিনি ওই অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিকে কয়েক কোটি টাকা দিয়েছেন। এরপর তিনি এনফোর্সমেন্ট ডায়রেক্টরেটের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ইডির পরামর্শে তিনি অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির কণ্ঠস্বর রেকর্ড করতে থাকেন। সেই রেকর্ড তিনি তুলে দেন ইডির হাতে। একইসঙ্গে দিল্লি পুলিশে অভিযোগ করেন, তাঁর থেকে ২০০ কোটি টাকা ঠকিয়ে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ তদন্ত করে জানতে পারে যে ব্যক্তি অদিতিকে ফোন করছিল, সে নিজেই জেলে বন্দি। জেলের মধ্যে সে হাতে পেয়েছে মোবাইল ফোন। তার কাছে এমন একটি সফটওয়ার আছে, যার সাহায্যে সে শীর্ষস্থানীয় সরকারি অফিসারদের ফোন নম্বর নকল করে কাউকে কল করতে পারে।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রতারকের নাম সুরেশ চন্দ্রশেখর। সে ২০১৭ সাল থেকে জেলে আছে। তার সঙ্গে অদিতির কথোপকথনের ৮৪ টি রেকর্ড পুলিশ দিল্লির আদালতে পেশ করে।

এর আগেও ভুয়ো পরিচয়ে অনেককে ঠকিয়েছে সুরেশ। সে একবার অদিতিকে বলেছিল, সুপ্রিম কোর্টে তাঁর স্বামীর জামিনের জন্য শুনানি হবে। তার আগে টাকা চাই। অদিতির বোন অরুন্ধতী তখন বলেন, “আপনি কেন বারবার টাকা চাইছেন। আমরা জানি না এই টাকা কোন কাজে লাগছে।”

সুরেশ একবার বলেছিল, সে অদিতির সঙ্গে স্বরাষ্ট্রসচিব অজয় ভাল্লার দেখা করিয়ে দেবে। সে দাবি করে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ নিজে তাকে অদিতিকে ফোন করতে বলেছেন।

You might also like