Latest News

নেতাই কাণ্ড: ১১ বছর ধরে সিবিআই কী করল, প্রশ্ন হাইকোর্টের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম ততদিনে বামফ্রন্ট সরকারের অবসান প্রায় নিশ্চিত করে দিয়েছে। ভোটের বছর ২০১১ সালের একেবারে গোড়ায় বামফ্রন্টের কফিনে শেষ পেরেকটা গেঁথে দিয়েছিল নেতাই। লালগড় ব্লকের এই গ্রামেই সিপিএম নেতা রথীন দণ্ডপাতের বাড়ি থেকে চলেছিল গুলি। মৃত্যু হয়েছিল ন’জনের। কিন্তু তার তদন্তের কী হল?

ওই মামলার তদন্ত করছিল সিবিআই। আদালতের তত্ত্বাবধানেই চলছে তদন্ত। সোমবার কলকাতা হাইকোর্ট সরাসরি প্রশ্ন করল, সিবিআই কী করেছে এত দিন ধরে?

শুধু প্রশ্ন তোলাই নয়, সিবিআইয়ের থেকে রিপোর্ট চেয়েছে আদালত। সিবিআই তদন্তের গতিপ্রকৃতি কী তা আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রিপোর্ট আকারে জমা দিতে হবে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

হাইকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের তরফে সিবিআই তদন্তের দাবি তোলা হয়েছিল।  একইসঙ্গে মৃতদের পরিবার ও আহতদের ক্ষতিপূরণের দাবিতে এই মামলা হয়। সেই সময়ে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য সরকার ক্ষতিপূরণও দেয়। তবে হাইকোর্টের নজরদারিতে সেই মামলা এখনও চলছে। চার্জশিট জমা পরলেও এখনও চূড়ান্ত সাজা ঘোষণা হয়নি। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব এই মামলা নিয়েই সিবিআই তদন্ত ও বিচার প্রক্রিয়ার অগ্রগতি সংক্রান্ত রিপোর্ট তলব করেন।

ওই মামলার অন্যতম অভিযুক্তরা জেলবন্দি রয়েছেন। তাঁরা সকলেই সিপিএমের নেতা। রথীন দণ্ডপাত, ফুল্লরা মণ্ডল, অনুজ পাণ্ডে, ডালিম পাণ্ডেরা নেতাই মামলায় প্রধান অভিযুক্ত।

You might also like