Latest News

সিলেবাস বদলে অনেক সহজ হয়েছে, পুরনো ছাত্রছাত্রীরা ফল ভুগছেন: নিয়োগ প্রসঙ্গে বিচারপতি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সময়ের সঙ্গে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় এসেছে প্রচুর বদল। সিলেবাস পাল্টেছে, ফলে এখনকার পরীক্ষার্থীরা নম্বরও পাচ্ছে প্রচুর। ২০০৪ সালে যাঁরা মাধ্যমিক দিয়েছেন, তাঁদের তুলনায় ২০১৭-১৮ সালের পরীক্ষার্থীরা বেশি নম্বর পেয়েছেন। ফলে টেট নিয়োগে নতুনদের কাছে পুরনো প্রার্থীরা পিছিয়ে পড়ছেন! এমন অভিযোগ তুলে মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্টে (Calcutta High Court)। সেই মামলার শুনানিতে এদিন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় (Justice Abhijit Ganguly) বলেন, সাধারণ চাকরিপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে কোনও বৈষম্য কাম্য নয়। সিলেবাসে বদল আসায় ফল ভুগতে হচ্ছে পুরনো ছাত্রছাত্রীদের।

২০০৪ সালে মাধ্যমিক ও ২০০৬ সালে উচ্চ মাধ্যমিক দিয়েছেন এমন ১৬ জন কলকাতা হাইকোর্টে একটি মামলা দায়ের করেন। তাঁদের অভিযোগ ছিল, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় (Recruitment) সিলেবাসের বৈষম্যের কারণে পিছিয়ে পড়ছেন তাঁরা। এখন সিলেবাস অনেক সহজ তাই নম্বর ও পাশের হার অনেক বেড়েছে।

এদিকে ২০২২ সালের টেট নিয়োগের ক্ষেত্রে অ্যাকাডেমি নম্বর খুব গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে নতুনদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় অনেকটাই পিছিয়ে পড়ছেন বলে অভিযোগ তোলেন মামলাকারীরা। এই মামলায় আদালত আগেই মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক বোর্ডের কাছে রিপোর্ট তলব করেছিল। সেই রিপোর্টে মামলাকারীদের অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছে বোর্ড।

তাদের রিপোর্টে জানানো হয়, ২০০৫ সাল নাগাদ পাশের হার ছিল ৭৪ শতাংশ সেখানে এখন বেড়েছে ৯০ শতাংশেরও বেশি। এদিন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, সাধারণ চাকরিপ্রার্থীদের প্রতি কোনও বৈষম্য হোক তা কাম্য নয়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সিলেবাসে বদল আসায় পুরনো ছাত্রছাত্রীরা এখন সাফার করছেন।

এই জন্য আদালতের তরফে একটি কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটিই বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করে কী করা উচিত তা জানাবে আদালতে। আগামী ১৫ ডিসেম্বর ফের এই মামলার শুনানি হবে।

নদিয়ার ছাত্র নিখোঁজ মামলা সিবিআইয়ের হাতে, সিআইডি তদন্তে অখুশি হাইকোর্ট

You might also like