Latest News

ভাইফোঁটার দিনে বোনফোঁটার আয়োজন শহরে, উদ্যোগে ভাষা ও চেতনা সমিতি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা, যমের দুয়ারে পড়ল কাঁটা…’, ভাইদের মঙ্গল ও দীর্ঘায়ু কামনায় শনিবার সকাল থেকেই ঘরে ঘরে পালিত হচ্ছে ভ্রাতৃদ্বিতীয়া। এই স্রোতের বিপরীতে হেঁটে বোন ফোঁটারও আয়োজন হল কলকাতার (Kolkata) বুকে।

এক দুজনকে নয়, গণ বোন ফোঁটার আয়োজন হল মানিকতলা খালপাড়ে। প্রতিবছরের মতো এই বছরেও ভাষা ও চেতনা সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত হল এই অভূতপূর্ব অনুষ্ঠান। আট থেকে আশি প্রচুর মানুষের সমাগম ঘটেছে এদিনের অনুষ্ঠানে।

উৎসবের মেজাজে সেজে উঠেছিল মানিকতলা খালপাড়। রঙিন পোশাকে এলাকার বোনদের ফোঁটা দেওয়ার মাধ্যমে সংগঠিত হয় অনুষ্ঠান পর্ব। এই অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণই হল আগে বোনেরা ফোঁটা পায়, তারপর একইভাবে ভাইদের ফোঁটা দেয়।

আরও পড়ুন: অরণ্যই ভাই! সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভের চারায় ফোঁটা দিলেন বোনেরা

মূলত, ভাষা ও চেতনা সমিতির ফুটপাতের পাঠশালায় এদিনের অনুষ্ঠানটি করা হয়েছে। ২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর এই আঙিনাতেই ভাইফোঁটার উৎসব পালন হয়। তবে ভাষা ও সচেতন সমিতির এই উদ্যোগ আরও পুরোনো।

২০০৯ সালে আয়লায় বিধ্বস্ত সুন্দরবনের বাগবাগানে এই অনুষ্ঠানের সূচনা করে সমিতির সদস্যরা। এটাই ছিল সেই সময় আয়লা বিধ্বস্ত সুন্দরবনের বুকে এক বড় উৎসব। সেই সময় বহু মানুষ এই অনুষ্ঠানে সামিল হয়েছিলেন। বোন ফোঁটা পর্ব সম্পন্ন করে একসঙ্গে খাওয়া দাওয়া করেছিলেন সকলে। সেই রেওয়াজ এখনও বহাল থেকে গেছে।

২০১৬ সাল থেকে মানিকতলা খালপাড়ে অনুষ্ঠিত হয় এই উৎসব। ভাষা ও চেতনা সমিতির সম্পাদক ইমানুল হক বলেন, “আমাদের সমাজ পুরুষশাসিত। নারীদের একাংশও পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার শিকার। সব উৎসব পুরুষের প্রাধান্য। জামাই ষষ্ঠী, ভাই ফোঁটা, পুজোর পুরোহিত মূলত পুরুষ। তাই তার উল্টোপথে হাঁটতে বোনফোঁটার আয়োজন।”

ধর্মবর্ণশ্রেণি নির্বিশেষে সবার যোগদান এই বোনফোঁটার অনুষ্ঠানকে সফলতার শিখরে নিয়ে গেছেন বলে মনে করেন ইমানুলবাবু। তিনি যোগ করেন, “এটা একটা ধর্মনিরপেক্ষ উৎসব। যেখানে যোগদানটাই মুখ্য। দেওয়া নেওয়া নয়। বোনফোঁটায় ২০০ র বেশি সুবিধাবঞ্চিত শিশু কিশোর কিশোরী অংশ নেন।”

সমাজে যেখানে ভেদভেদের কঠোর চোখ রাঙানিতে শাসন চলছে, সেখানে এমন উৎসব এক অন্য মাত্রা দেয়। ঐক্য ও ধর্মনিরপেক্ষতার পাঠ পড়ান ভাষা ও চেতনা সমিতি।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like