Latest News

ধর্ষণে গর্ভবতী নাবালিকা, গর্ভপাতের অনুমতি দিল বম্বে হাইকোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ধর্ষণের কারণে গর্ভবতী (Pregnant) হয়ে পড়েছিল এক নাবালিকা। তার গর্ভে ধারণ করা সন্তানের বয়স এখন ১৬ সপ্তাহ। কিন্তু এই অবস্থাতেও তাকে গর্ভপাত (Abortion) করানোর অনুমতি দিল বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর খণ্ডপীঠ (Bombay High Court)।

বিচারপতিরা তাঁদের রায়ে বলেছেন, তাঁর গর্ভে ভ্রূণ বড় করা মানে শুধু তার শরীরের উপর বোঝা বাড়ানো হয়, এটা তার মনে গভীর ক্ষত তৈরি করতে পারে।

ওই নাবালিকা আসলে একটি খুনের ঘটনার অভিযোগে অভিযুক্ত। তাকে একটা হোমে রাখা হয়েছে। বিচারপতিরা তাঁদের রায়ে জানিয়েছেন, সুপ্রিম কোর্ট এর আগেও বলেছে, কোনও মহিলা গর্ভধারণ করবেন কিনা তা স্থির করার মৌলিক অধিকার তাঁর রয়েছে। সুতরাং কোনও মহিলাকে সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য বাধ্য করা যাবে না। বরং তিনিই স্থির করবেন যে সন্তানের জন্ম দেবেন কি দেবেন না।

প্রসঙ্গত, গর্ভধারণের পর কত সপ্তাহ পর্যন্ত গর্ভপাত করানো যেতে পারে সে ব্যাপারে অবশ্য সুনির্দিষ্ট আইনি নিয়ম রয়েছে। সেই নিয়ম আবার পরিস্থিতি সাপেক্ষে কোনও কোনও ক্ষেত্রে শিথিল করার কথাও বলা রয়েছে আইনে।

যে নাবালিকার বিষয় নিয়ে মামলা হয়েছিল হাইকোর্টে সে জানিয়েছে, তাঁর শ্লীলতাহানি করা হয়েছে। সে গর্ভবতী হয়ে পড়েছে ঠিকই, কিন্তু সমস্তটাই তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে হয়েছে। তা ছাড়া তার আর্থিক সামর্থ্যও নেই সন্তান বড় করার।

আদালতে এই কথাটাই স্পষ্ট করে জানান নাবালিকার আইনজীবী। এই আবেদনের ভিত্তিতে আদালত নাবালিকার মেডিকেল রিপোর্ট চায়। গর্ভপাত করানোর ব্যাপারে মেডিকেল বোর্ডও সম্মতি দিয়েছে।

মামলার শুনানির পর বিচারপতি এ এস চান্দুরকর ও বিচারপতি উর্মিলা জোশী ফালকে বলেন, ওই নাবালিকা খুনের মামলায় অভিযুক্ত ঠিকই। কিন্তু তাঁকে গর্ভপাতের অনুমতি না দেওয়া মানে তাঁকে আরও বিপদের মধ্যে ফেলে দেওয়া। এতে তার শরীরে চাপ তো পড়বেই, সেই সঙ্গে মানসিক ভাবেও বিধ্বস্ত হয়ে পড়তে পারে। তাই গর্ভপাতের অনুমতি দেওয়া হল।

আরও পড়ুন: ভারতে গর্ভপাতের নিয়ম কী?

You might also like