Latest News

জিএসটি: মোদীকে আক্রমণে দাদা রাহুলকে ছাপিয়ে যাচ্ছেন বিজেপির বরুণ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কিছু প্যাকেট করা খাদ্যসামগ্রীতে জিএসটি (GST) চাপিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তা নিয়ে সংসদে, সংসদের বাইরে সরকারকে চেপে ধরেছে বিরোধীরা। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন-সহ বিজেপি নেতা-মন্ত্রী-সাংসদেরা যখন সরকারি পদক্ষেপের সাফাই দিতে ব্যস্ত তখন বিরোধীদের থেকেও চড়া সুরে তোপ দাগলেন দলে (BJP) একমাত্র বিরুদ্ধ কণ্ঠ সেই বরুণ গান্ধী (Varun Gandhi)। দুধ, আটা ইত্যাদি খাদ্যবস্তুর উপর জিএসটি বসানোর সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছেন তিনি। টুইটে বলেছেন, সরকারের উচিত আম আদমির পক্ষে পদক্ষেপ নেওয়া। জনগণের পিঠে কিল মারা সরকারের কাজ নয়। খাদ্যবস্তুর উপর জিএসটি চাপানোয় জনমনে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

টুইটে আরও লিখেছেন, ‘দুধ, আটা, ডাল, চাল ইত্যাদির উপর জিএসটি কার্যকর করা হয়েছে। মদের ওপর নয়।’ এর ফলে জিএসটি চালু করার উদ্দেশ্যই ব্যর্থ হচ্ছে।

জিএসটি নিয়ে সরব হয়েছেন রাহুল গান্ধীও। তিনিও টুইট করেন। তবে তা বরুণের মতো তীক্ষ্ণ ছিল না। রাহুলের নেতৃত্বে কংগ্রেস সংসদে গান্ধী মূর্তির সামনে বিক্ষোভ-অবস্থান করে।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা গতকাল জিএসটি নিয়ে বিরোধীদের সমালোচনার জবাব দিতে ১৪টি টুইট করেন। আজ ময়দানে নেমেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। তাঁর প্রশ্ন বিরোধীরা এখন চিৎকার করছে। অথচ, এই সব খাদ্যবস্তুতে জিএসটি বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় জিএসটি কাউন্সিলে তারা কেন আপত্তি করেনি?

নির্মলা গতকাল টুইটে ব্যাখ্যা করেছিলেন, নয়া জিএসটি’তে আম আদমির কোনও সমস্যা হবে না। প্যাকেট ভর্তি কিছু খাবারের ক্ষেত্রে জিএসটি বসেছে। ওই একই খাদ্যবস্তু লুজ কিনলে জিএসটি দিতে হবে না।

বরুণ জিএসটি চাপানোর দিন, অর্থাৎ গত পরশুই টুইট করে মোদী সরকারের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন। বলেন, ‘আজ থেকে দুধ, দই, মাখন, চাল, ডাল, রুটির মতো প্যাকেটজাত পণ্যগুলিতে জিএসটি বসল। বেকারি যখন রেকর্ড করেছে তখন এমন সিদ্ধান্ত ঘা খুঁচিয়ে দেওয়ার শামিল।

বরুণের এমন সব মন্তব্য নতুন নয়। এর আগে মোদী সরকারের কৃষি বিল, অগ্নিপথ স্কিমের বিরুদ্ধে তাঁর বিরোধিতা বিজেপি ও সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়েছে। তবে দল এখনও পর্যন্ত তাঁর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। এমনকি সতর্কও করেনি। অগ্নিপথ প্রকল্প ফিরিয়ে নিতে তিনি লাগাতার গলাবাজি করে গিয়েছেন। সেনার ওই প্রকল্পে নিয়োগে জাত ও ধর্ম পরিচয় জানতে চাওয়া নিয়ে কড়া ভাষায় টুইট করেন। তাঁর বক্তব্য, অগ্নিপথের নিয়োগে জাত শংসাপত্র চাওয়া হচ্ছে। আমরা কি জাত দেখে কারও দেশপ্রেম ঠিক করব? এইভাবে জাত পরিচয় জানতে চাওয়া সেনাবাহিনীর ঐতিহ্য এবং জাতীয় নিরাপত্তার ওপর কী প্রভাব ফেলবে তা সরকারের ভাবা উচিত।

আরও পড়ুন: তাতালেন মোদী, কমনওয়েলথ গেমসে ভারতের জার্সিতে রোনাল্ডো, বেকহ্যাম

You might also like