Latest News

দ্রৌপদীকে ‘রাষ্ট্রপত্নী’ বলে বিপাকে অধীর, বিজেপির প্রতিবাদে সংসদ উত্তাল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সংসদের চলতি বর্ষাকালীন অধিবেশন বিরোধীদের প্রতিবাদের মুখে বারে বারে বিঘ্নিত হয়েছে। রাজ্যসভা ও লোকসভা মিলিয়ে বিরোধী শিবিরের ২৪ জন সাংসদকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দেখা গেল উল্টো চিত্র। সংসদ শুরু হতেই প্রতিবাদে মুখর হন বিজেপির (BJP) সাংসদেরা। বিশেষ করে দলের মহিলা সাংসদেরা। এর ফলে সংসদের দুই কক্ষেই কাজকর্ম কিছু সময়ের জন্য বিঘ্নিত হয়।

বিজেপি সাংসদদের দাবি, রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুকে (Draupadi Murmu) ‘রাষ্ট্রপত্নী’ বলেছেন কংগ্রেস নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী। (Adhir Ranjan Chowdhury) তিনি তো বটেই, সনিয়া গান্ধীকেও ক্ষমা চাইতে হবে। বিজেপি এই ব্যাপারে কংগ্রেসকে চেপে ধরতে এগিয়ে দেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানিকে (Smriti Irani)। দিন কয়েক যাবৎ স্মৃতিকে টার্গেট করেছে কংগ্রেস। স্মৃতির মেয়ে গোয়ায় বেআইনিভাবে বার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ কংগ্রেসের। এ নিয়ে স্মৃতি কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশকে উকিলের চিঠি ধরিয়েছেন। অধীরের বেফাঁস মন্তব্য নিয়ে আজ সংসদে গলা চড়ান আমেথির সাংসদ। অধিবেশন কক্ষের বাইরে প্ল্যাকার্ড হাতে বিজেপির মহিলা সাংসসদের বিক্ষোভ আন্দোলনের সামনের সারিতে ছিলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।

অধীরের বক্তব্য, ক্ষমা চাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। মুখ ফসকে আমি রাষ্ট্রপত্নী কথাটি বলেছিলাম। তার জন্য ভুল স্বীকার করেছি। বিজেপির কাছে ক্ষমা চাইতে যাব কেন? অধীরের হয়ে সভায় মুখ খোলেন সনিয়া গান্ধীও। তিনি বলেন, অধীর ভুল স্বীকার করেছে। এখানেই বিষয়টি মিটে যাওয়া উচিৎ।

বিতর্কের সূত্রপাত গতকাল। বিরোধীদের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে অভিযোগ করে গতকাল কংগ্রেস সাংসদেরা রাষ্ট্রপতি ভবনের দিকে রওনা হন। কিন্তু পুলিশ তাঁদের আটকে দিয়ে বলে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে হলে আগাম অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে হবে। পুলিশের বাধা নিয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে অধীর বলেন, ‘রাষ্ট্রপত্নী সকল দেশবাসীর। সকলেরই তাঁর কাছে যাওয়ার অধিকার আছে।’ অধীরের এই মন্তব্যকেই রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর অবমাননা বলে বিজেপি অভিযোগ তুলে আজ সংসদে প্রতিবাদে মুখর হয়।

আরও পড়ুন: অস্থির ইরাক, শ্রীলঙ্কার ধাঁচে বিক্ষোভকারীরা ঢুকে পড়ল সরকারি ভবনে, দখল সংসদ ভবন

You might also like