Latest News

Bimal Gurung: মোর্চাই বলছে অনশন তুলুন, রাজি নন গুরুং, চাইছেন নবান্নের বার্তা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জিটিএ নির্বাচনের প্রতিবাদে শুক্রবার তিন দিনে পড়ল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা সুপ্রিমো বিমল গুরুংয়ের (Bimal Gurung) অনশন। কিন্তু তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, গুরুং যখন অনশনে তখন মোর্চার কেন্দ্রীয় কমিটি বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নিল, তাঁকে অনশন তুলতে বলা হবে।

গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার কার্যকারী সভাপতি লোপসাং লামার বক্তব্য , “আমাদের সেন্ট্রাল কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিমল গুরুংকে (Bimal Gurung) অনশন ভাঙার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে ,  কিন্তু তিনি রাজি হচ্ছেন না।”

কী বলছেন বিমল গুরুং? (Bimal Gurung)

লোপসাং লামা জানিয়েছেন, “গুরুং বলছেন রাজ্য থেকে যতক্ষণ না পর্যন্ত বার্তা আসছে ততক্ষণ তিনি অনশনে বসে থাকবেন। আমরা চেষ্টা করছি। রাজ্য যাতে কিছু বার্তা পাঠায় বা তাঁর সঙ্গে সরকারের প্রতিনিধি দেখা করেন এটাই এখন চাইছে মোর্চা।

মনস্তাত্বিক মূল্যায়ণ বাধ্যতামূলক হোক, অভিনেত্রীদের আত্মহত্যার হিড়িক নিয়ে বললেন শ্রীলেখা

তিনদিন হয়ে গেল অনশন করছেন গুরুং। কিন্তু তাঁকে যেন একাকী করে রেখেছে পাহাড়। সদ্য তৈরি হওয়া দল ভারতীয় গোর্খা সুরক্ষা পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা এস.পি শর্মা ছাড়া কেউ দেখা করতে আসেননি মোর্চা নেতার সঙ্গে।

অনেকের মতে, বিমল গুরুংও বুঝতে পারছেন পাহাড়ে তিনি এখন আর প্রাসঙ্গিক নন। তাই হয়তো দলের মধ্যে মুখ রাখতে সরকারি বার্তার পর অনশন তুলতে চাইছেন।

মাস খানেক আগে যখন বিমল গুরুং জিটিএ নির্বাচনের বিরোধিতা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি লিখেছিলেন, সেইসময়ে দ্য ওয়ালের প্রতিবেদনে লেখা হয়েছিল নবান্ন ওই চিঠিকে আমল দিচ্ছে না। কারণ রাজ্য সরকারও জানে, একটা সময়ে বিমল গুরুংয়ের যে প্রতাপ ছিল এখন তা নেই। শুধু তাই নয়, পাহাড়ে নতুন করে মাথা তোলা হামরো পার্টি পাহাড়ি তরুণ-তরুণীদের মধ্যে ইউফোরিয়া তৈরি করেছে। ফলে গুরুংয়ের কথার কোনও ভিত্তি নেই। হতে পারে সে কারণেই গুরুংয়ের অনশনকে তাই অপ্রাসঙ্গিক করে রাখতে চায় নবান্ন। আর গুরুং চান, নবান্নের বার্তা। অনশন তোলার একটা এক্সিট রুট খুঁজছেন বলেই মত অনেকের।

You might also like