Latest News

Katwa: মাথায় টিউমার, ছোট্ট দিতিপ্রিয়ার চিকিৎসায় পাশে দাঁড়ান, আর্তি বাবার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ছোট্ট দিতিপ্রিয়া ব্রেন ক্যান্সারে আক্রান্ত। চিকিৎসার খরচ প্রচুর। বাবা দীপঙ্কর দেবনাথের ছোট দোকান। জেরক্স, ইলেকট্রিক বিল, টিকিট কাটা-সহ অন্যান্য অনলাইন বিল পেমেন্টের কাজ করেন তিনি। আয় সামান্যই। সহায়-সম্বল যা ছিল, ইতিমধ্যেই মেয়ের চিকিৎসায় শেষ হয়েছে। কিন্তু মেয়েকে সুস্থ করতে এখনও অনেক টাকা লাগবে। এই পরিস্থিতিতে চিকিৎসা (Treatment) করানো অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে কাটোয়ার (Katwa) দেবনাথ পরিবারের। তাই মারনব্যাধি থেকে সন্তানকে সুস্থ করার জন্য সকলের কাছে সাহায্যের আর্জি জানাচ্ছেন বাবা।

সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে সাহায্যের জন্য নেমেছে কাটোয়া ও দাঁইহাট শহর। কিন্তু তা পর্যাপ্ত নয়। তাই দীপঙ্করবাবুর আবেদন, যদি আরও অনেকে এগিয়ে আসেন, তাহলে মেয়েকে সুস্থ করে বাড়ি ফেরাতে পারবেন তাঁরা।

দেড় বছরের দিতিপ্রিয়াকে সুস্থ করতে প্রয়োজন অন্তত ৯ লক্ষ টাকা। কাটোয়ার (Katwa) ১১ নম্বর ওয়ার্ডের আদর্শপল্লির বাসিন্দা দীপঙ্কর দেবনাথের সেই সামর্থ্য নেই। তাঁর স্বল্প উপার্জনের সব টাকা ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে।

দীপঙ্করের ঘরে বছর দেড়েক আগে জন্ম নেয় ফুটফুটে দিতিপ্রিয়া। প্রথমে বাচ্চার কোন সমস্যা ছিল না। কিন্তু মাস পাঁচেক আগে হঠাৎই অসুস্থ হয়ে পড়ে দিতিপ্রিয়া। ঠান্ডা লেগে সর্দি কাশি জনিত সমস্যা শুরু হয়। কাটোয়ায় অনেক ডাক্তার দেখিয়েও রোগের সমাধান মেলেনি।

ছোট্ট দিতিপ্রিয়া

ক্রমে রোগ বাড়তে থাকে। খাওয়ার অরুচি, বমি শুরু হয় দিতিপ্রিয়ার। ধীরে ধীরে পরিবারের লোকজন লক্ষ্য করে, দিতিপ্রিয়া ঘাড় একদিকে কাত করে রাখছে। এরপর ফের সে অসুস্থ হলে তাকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয় চিকিৎসার জন্য। চিকিৎসায় ধরা পড়ে দিতিপ্রিয়ার মাথায় একটি টিউমার আছে। কলকাতার ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স হাসপাতালে ৭ এপ্রিল অস্ত্রোপচার করা হয় তার। চিকিৎসকরা জানান অস্ত্রোপচার ৯৫ শতাংশ সফল হলেও ৫ শতাংশ টিউমার এখনও শরীরেই রয়ে গিয়েছে। এবং যা ফের বড় আকার ধারণ করতে পারে।

চিকিৎসায় এখনও পর্যন্ত খরচ ছড়িয়েছে লাখ পাঁচেকের ওপর। কিন্তু মেয়েকে পুরোপুরি সুস্থ করতে প্রয়োজন আরও অর্থের। কিন্তু সেই টাকা জোগাড় করার সামর্থ্য নেই দেবনাথ পরিবারের। অগত্যা মানুষের সাহায্য চান তাঁরা। পুরো চিকিৎসা প্রক্রিয়ার খরচ অনেক। সবাই এগিয়ে এলে তবেই বাঁচানো যাবে সবে পৃথিবীতে আসা শিশুটিকে।

তবে ফিরিয়ে দেননি কাটোয়ার মানুষেরাও। দীপঙ্করবাবু বলেন, ‘আমরা অপারেশনের পর জানতে পারি টিউমার আবার হচ্ছে। এবং এটা আর কিছুই না, ব্রেন ক্যান্সার। আমাদের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। যা টাকা ছিল শেষ হয়েছে। এর চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল। কিন্তু মেয়েকে তো বাঁচাতেই হবে। তাই আমার বন্ধু বান্ধব, পরিজন সকলের কাছেই সাহায্যের জন্য বলছি। সবাই যদি সাহায্য করে তাহলে মেয়েকে সুস্থ করে ফিরিয়ে আনতে পারব।”

ছোট্ট দিতিপ্রিয়ার জন্য কাটোয়া ও দাঁইহাট শহরের অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সাধ্যমত সাহায্য করছেন। কিন্তু আরও সাহায্য প্রয়োজন।

লালুর তাড়ায় পড়িমরি ছুট দিল বুনো হাতির দল! জলপাইগুড়িতে তুমুল হইচই

You might also like