Latest News

বিয়ের জন্য লাগবে নাবালিকার রক্ত! দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ গৃহশিক্ষকের

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বাঁকুড়া: বয়স বেড়েই চলেছে, এদিকে বিয়ে হচ্ছে না। ‘তান্ত্রিক’-এর নিদান, সমস্যার সমাধানে প্রয়োজন নাবালিকার (minor) রক্তবস্ত্র। তা জোগাড় করার জন্য দ্বিতীয় শ্রেনির এক ছাত্রীকে (class 2 student) ধর্ষণ (rape) করল এক গৃহশিক্ষক (home tutor)!

ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার বাঁকুড়ার (Bankura) বিষ্ণুপুরের বনমালীপুরে। অভিযুক্ত গৃহশিক্ষকের নাম সবুজ দে। তান্ত্রিকের নাম গুরুপদ মাঝি। বেলিয়াতোড়ের নারায়ণগঞ্জের মাঝি পাড়ায় এটি মনসা মন্দিরে গুরুপদ তান্ত্রিক হিসেবে দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন তুকতাক চর্চা করে থাকে বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে, সবুজ দে নামে মূল অভিযুক্তের বয়স ৩০ বছর। স্নাতক স্তরের পড়াশোনা শেষ করার পর নিজের বাড়িতেই গ্রামের ছেলেমেয়েদের টিউশন পড়ায় সে। বেশ কিছুদিন ধরেই তার বিয়ের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছিল। কিন্তু বয়স বেড়ে গেলেও কিছুতেই সম্বন্ধ পাকা হচ্ছিল না। অবশেষে আত্মীয়দের মুখ থেকে সে তান্ত্রিক গুরুপদ মাঝির সন্ধান পায়। গুরুপদ সবুজকে জানায়, মা মনসা তার উপর রুষ্ট। ১ হাজার টাকা দক্ষিণার বিনিময়ে সে সবুজকে নিদান দেয়, মায়ের মন পেতে গেলে অমাবস্যার রাতে তাঁর পায়ে কোনও নাবালিকার রক্তবস্ত্র অর্পণ করতে হবে।

সেই মতোই কালীপুজোর রাতে মায়ের পায়ে নাবালিকার রক্তে ভেজানো বস্ত্র নিবেদন করার সিদ্ধান্ত নেয় সবুজ। সেই কাজের জন্য সে নিশানা করে তারই কাছে পড়তে আসা দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে। গত ২৩ অক্টোবর অন্য ছাত্রছাত্রীদের বেশ কিছুটা আগে ছেড়ে দেয় সবুজ। কিন্তু আটকে রাখে ওই নাবালিকাকে। তারপর তাকে ধর্ষণ করে সাদা কাপড় ভিজিয়ে নেয় তার রক্তে।

এদিকে রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ি ফেরার পরেই অসুস্থ হয়ে পড়ে ওই নাবালিকা। বাবা-মার কাছে সব কথা খুলে বলে সে। তাকে বিষ্ণুপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ২৪ অক্টোবর নাবালিকার পরিবারের তরফে বিষ্ণুপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে সবুজ দেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গতকাল, রবিবার গ্রেফতার করা হয় তান্ত্রিক গুরুপদ মাঝিকেও। আজ সোমবার তাকে আদালতে তোলা হবে। অভিযুক্ত গৃহশিক্ষকের বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। রবিবার তাকে আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন।

পুলিশের কাছে সব ঘটনা নিজের মুখেই স্বীকার করেছে সবুজ। সে জানিয়েছে, নির্যাতিতা ছাত্রীকে সে চকলেটের লোভ দেখিয়ে এবং মা মনসার বিশেষ খেলা দেখানোর নাম করে সেদিন বাড়িতে আটকে রেখেছিল। ধৃত তান্ত্রিক গুরুপদ মাঝির ব্যাপারে পুলিশ জানিয়েছে, ওই মনসা মন্দিরে দীর্ঘদিন ধরেই ঘাঁটি গেড়ে বসেছিল সে। তুকতাক, বশীকরণ থেকে শুরু করে এই ধরনের বিভিন্ন কার্যকলাপের সিদ্ধহস্ত ছিল গুরুপদ। অনেক দূরদূরান্ত থেকেও সমস্যা সমাধানের জন্য তার কাছে লোকজন আসত বলে জানা গেছে। তার প্ররোচনাতেই নাবালিকাকে ধর্ষণ করে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে সবুজ।

১২ বছরের কিশোরীকে গণধর্ষণের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও পোস্ট, গ্রেফতার ৩ নাবালক

You might also like