Latest News

মায়ের বিদায়বেলাতেই শুরু উৎসব! বাদুড়িয়ার বসু পরিবারের পুজোর বিশেষ আকর্ষণ দশমীতেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর ২৪ পরগনা: বাদুড়িয়ার বসু পরিবারের (Baduria Basu Family) পুজো এবার ৩৮৭ বছরে পা দিল। পুজো শুরুর বাকি আর দিন কয়েক। কিন্তু তিন শতাব্দী প্রাচীন এই পুজো ঘিরে এখন থেকেই উত্তেজনায় ফুটছেন বসু পরিবারের ছোট থেকে বড় সকলে। এই পুজোর (Durga Pujo 202) বৈশিষ্ট্য হল লুকিয়ে রয়েছে প্রতিমা নিরঞ্জনে।

পুজো মানেই ষষ্ঠী থেকে নবমীই মূল আকর্ষণ, কিন্তু বসু বাড়ির দুর্গাপুজোয় দশমীর আকর্ষণই যেন সবচেয়ে বেশি। এই দিন অজস্র রীতি ও প্রতিমা নিরঞ্জনের শোভাযাত্রা দেখার জন্য ঢল নামে বসু বাড়িতে। ৩০ বেয়ারার কাঁধে চেপে নিরঞ্জনের পথে এগিয়ে যান মা। তার আগে সিঁদুর খেলায় মাতেন পরিবারের সদস্যরা।

যতক্ষণ না বসু বাড়ির দুর্গা ঠাকুর বিসর্জন হয়, ততক্ষণ আশেপাশের বাকি পুজোগুলির প্রতিমা ঠাকুর দালান থেকেই নামানো হয় না। পাশের ধান্যকুড়িয়া, তারাগুনিয়া, জগন্নাথপুর গ্রামের জমিদার বাড়ির দুর্গাপুজোর বিসর্জনের আগে বসু বাড়ির প্রতিমা ইছামতী নদীতে নিরঞ্জনের এই প্রথা আজও চলে আসছে।

বসু পরিবারের পুজোয় আজও বলি হয়, তবে তার নিয়ম অনেকটাই আলাদা। এখানে সপ্তমীতে ছাগল, অষ্টমীতে ভেড়া ও নবমীতে কুমড়ো বলি দেওয়া হয়! বংশপরম্পরায় এই ঐতিহ্যবাহী দুর্গাপুজো করে আসছে ভট্টাচার্য পরিবার। এবারেও সেই রীতি মেনেই পুজো করবেন অরূপ ভট্টাচার্য।

বাংলা প্রাচীন দুর্গাপুজোগুলোর মধ্যে অন্যতম বাদুড়িয়ার এই বসু বাড়ির পুজো। তবে এই পুজো এখন অনেকে জানেন অভিনেতা বিশ্বনাথ বসুর বাড়ির পুজো বলে। বাদুড়িয়ার বসু পরিবারেরই ছেলে বিশ্বনাথ। পুজোর কয়েকদিন এই বাড়িতেই থাকেন তিনি।

এক আসনে বসেই পুজো সারতে হয় তালিত গ্রামের ‘দালান মা’র

You might also like