Latest News

Asansol Court: দাঙ্গা নয়, শান্তি চাই! ছেলের খুনে ধৃতদের বিরুদ্ধে সাক্ষীই দিলেন না বাবা, আসানসোলে নজির

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ছেলের খুনিদের নিজের চোখে দেখেননি। তাই মিথ্যে সাক্ষী দিয়ে তাঁদের শাস্তি চান না বলে জানালেন পুত্রহারা বাবা। সঙ্গে বললেন, শান্তি চাই। আর কোনও বাবাকে যেন এভানে সন্তান হারাতে না হয়, সেটুকুই প্রার্থনা করলেন আদালতে (Asansol Court) দাঁড়িয়ে। ছেলেকে হারানোর পরেও একজন বাবার এমন আচরণ ঐতিহাসিক বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁর সাক্ষ্যের অভাবেই বেকসুর খালাস হয়ে যায় দুই সন্দেহভাজন আততায়ী।

আরও পড়ুন: পেট্রোল-ডিজেল আরও দামী! জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধিতে লাগাম নেই, ৬ দিনে ৫ বার দাম বাড়ল

আসানসোল আদালত শনিবার নজিরবিহীন এই ঘটনার সাক্ষী থাকে। ২০১৮ সালে রামনবমীর দিন এক যুবককে খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হয় বিনয় তিওয়ারি এবং পিন্টু যাদব। আসানসোল আদালতের জেলা জজ শরণ্যা সেন প্রসাদ এদিন তাদের বেকসুর খালাস করে দিয়েছেন। কারণ মৃতের বাবা ওই দুই যুবকের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে চাননি।

রামনবমীর দিন দশম শ্রেণির ছাত্র সিবাগত উল্লা রাসিদকে কেউ বা কারা অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। এই খুনের সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে বিনয় তিওয়ারি এবং পিন্টু যাদব এক বছর জেল খেটেছে। তারপর জামিন পেয়েছে তারা। আদালতে দুজনের বিরুদ্ধে মোট ১০ জন সাক্ষী এনেছিল পুলিশ। মূল সাক্ষী ছিলেন মৃত সিবাগতের বাবা ইমাম ইমদাদ উল্লা রাসিদ। শনিবার মামলার শুনানির দিন আদালতে আসতে অস্বীকার করেন ইমাম। বলেন, ছেলেকে খুন করতে তিনি দেখেননি। তাই দুজনের বিরুদ্ধে মিথ্যে সাক্ষী তিনি দেবেন না।

এমন ঘটনার পর আসানসোল আদালতের ৭১ বছরের সহকারী আইনজীবী স্বরাজ চট্টোপাধ্যায় জানান তিনি দীর্ঘ ৪১ বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত, কিন্তু আজকের এই ঘটনা তার আইনজীবী পেশায় বিরলতম। এমনটা আগে কখনও হতে দেখেননি তিনি।

ইমামের একটাই প্রার্থনা, ধর্মের নামে এই রক্তারক্তি বন্ধ হোক, সাম্প্রদায়িক তিক্ততা কেটে যাক। এলাকায় সবাই মিলেমিশে থাকুক, দাঙ্গা ভুলে জয় হোক সম্প্রীতির। ছেলে খুন হয়েছে শুনে চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি ইমাম। কিন্তু সেই থেকেই এই একটাই প্রার্থনা জানিয়ে এসেছেন তিনি।

You might also like