Latest News

সিবিআই তদন্তের মুখে মদ-নীতি বাতিল, পিছু হঠলেন কেজরিওয়াল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মদ-নীতি বাতিল করল দিল্লির আম আদমি সরকার (AAP)। আগামীকাল থেকে মদ (Liquor) বিক্রির পুরনো নীতিতে ফিরে যাচ্ছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সরকার (Arvind Kejriwal)। গতকাল দিল্লির (Delhi) উপ-রাজ্যপাল ভিকে সাক্সেনার সঙ্গে দেখা করে সরকারের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে এসেছেন কেজরিওয়াল। সংবাদমাধ্যমের সামনে দাঁড়িয়ে দু’জনে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। কেজরিওয়াল বলেন, কাজ করলে কিছু ভুল বোঝাবুঝি হয়। উপ-রাজ্যপালের সঙ্গে কোনও বিরোধ হয়নি সরকারের।

রাজনৈতিক মহল অবশ্য মনে করছে, মদ-নীতি বাতিল আপ সরকারের জন্য বড়মাপের ধাক্কা। কেন্দ্রীয় সরকার ও বিজেপির চাপের মুখে বিরোধ না বাঁধিয়ে পিছু হঠলেন দোর্দণ্ডপ্রতাপ আপ সুপ্রিমো। কেন্দ্রের মোদী সরকারে মতো কেজরিওয়ালও দুর্নীতি মুক্ত প্রশাসন উপহার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছেন। আন্না হাজারের দুর্নীতি বিরোধী মঞ্চের অন্যতম মুখ ছিলেন কেজরিওয়াল। কিন্তু দ্বিতীয়বারের জন্য দিল্লিতে ক্ষমতায় টিকে যাওয়ার পর সরকারের অনিয়ম, দুর্নীতির একাধিক ঘটনা সামনে আসছে। এমনকি দিল্লি সরকারে সাফল্যের নানা খতিয়ানে বিপুল জল মেশানো হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

মদ-নীতি নিয়ে গত সপ্তাহে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেন দিল্লির উপ-রাজ্যপালই। সেই তদন্তের সূত্রে আলোচনায় আসে কেজরিওয়ালের সবচেয়ে অনুগত উপমুখ্যমন্ত্রী মনীশ সিসোদিয়ার নাম। দিল্লি সরকারে আবগারি দফতর তাঁর হাতে রয়েছে, তাই-ই শুধু নয়, সিসোদিয়া নিজের হাতে মদ-নীতির খসড়া তৈরি করেন বলে খবর।

অভিযোগ উঠেছে, মদ-নীতিটি আসলে নীতি-দুর্নীতির একটি হাতিয়ার। অর্থাৎ এমনভাবে নীতি করা হয়েছে যাতে মদ ব্যবসায়ীরা লাভবান হন। এক বছরেই দিল্লির আপ সরকার তাঁদের দেড় হাজার কোটি টাকার বাড়তি সুবিধা পাইয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ। বিজেপি দাবি করছে, এই বাবদ কয়েকশো কোটি টাকা কাটমানি বাবদ আদায় করে আপ তা পাঞ্জাবের বিধানসভা ভোটে জিততে ব্যয় করেছে। বাকি টাকা গুজরাত ও হিমাচলের ভোটে খরচ করবে বলে রাখা আছে।

কেজরিওয়াল প্রথমে উপরাজ্যপালের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে মনীশকে দেশপ্রেমিক, সৎ ইত্যাদি বলে আড়াল করার চেষ্টা করলেও এখন পিছু হঠলেন। সূত্রের খবর, মনীশের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ আপকে শুধু দিল্লিতে নয়, গুজরাত এবং হিমাচলেও বিপাকে ফেলেছে। বছরশেষে হিমাচলপ্রদেশ ও গুজরাতে বিধানসভা ভোট। দুই রাজ্যেই বিজেপি প্রচার শুরু করেছে দিল্লির চোরের দল এখানে আসছে। এরমধ্যে হিমাচলে আবার মনীশ সিসোদিয়াই আপের হয়ে নির্বাচনের দায়িত্বে আছেন।

প্রসঙ্গত, মাস দুই আগে কেজরিওয়াল সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈনকে গ্রেফতার করে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। তখনও কেজরিওয়াল দাবি করেছিলেন, সত্যেন্দ্রর মতো সৎ মানুষ কমই আছেন। সততা এবং ভাল কাজের জন্য তিনি পদ্মভূষণ, পদ্মবিভূষণ পাওয়ার যোগ্য। এর দিন সাতেকের মধ্যে ইডি সত্যেন্দ্রর নিজের বাড়ি থেকে বিপুল ধনদৌলত বাজেয়াপ্ত করে।

গ্রেফতার হওয়ার আগে সত্যেন্দ্রর নাম আলোচনায় আসত দিল্লির বস্তিতে সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্র খুলে মানুষের কাছে চিকিৎসার সুযোগ পৌঁছে দেওয়ার জন্য। এখন কেন্দ্রীয় সরকার অভিযোগ করছে, ওই প্রকল্পের খতিয়ানে বিস্তর জল আছে। আধুনিক শহর সংক্রান্ত এক আলোচনায় সিঙ্গাপুর সরকার কেজরিওয়ালকে সে দেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। কেজরিওয়াল সেখানে দিল্লির বস্তির স্বাস্থ্যকেন্দ্রকে মডেল হিসাবে তুলে ধরতে প্রস্তুত হচ্ছিলেন। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার তাঁকে এখনও সিঙ্গাপুর যাওয়ার ছাড়পত্র দেয়নি। সূত্রের খবর, ভবিষ্যতে ওই প্রকল্প নিয়ে বিতর্ক, তদন্ত হতে পারে ধরে নিয়েই কেজরিওয়ালের সিঙ্গাপুর সফরের ছাড়পত্র সংক্রান্ত ফাইল প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে পড়ে আছে।

আরও পড়ুন: মূল্যবৃদ্ধি: বাংলা-সহ বিরোধী শাসিত রাজ্যকে সংসদে টার্গেট করতে চলেছে মোদী সরকার

You might also like