Latest News

Arjun Singh: ‘ওঁরা যেদিন সাংসদ পদ ছাড়বেন, আমিও ছেড়ে দেব’, সাফ কথা অর্জুনের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শনিবার বিকেলে দ্য ওয়ালে প্রথম লেখা হয়েছিল, রবিবার অর্জুন সিং (Arjun Singh) তৃণমূলে ফিরতে চলেছেন। এদিন তাই হয়েছে। সেই সঙ্গে দ্য ওয়ালে এ-ও লেখা হয়েছিল, যে, বাবুল সুপ্রিয়র তৃণমূলে আসা এবং অর্জুনের আসার মধ্যে একটা মৌলিক ফারাক থেকে যাবে। হলও তাই।

বাবুল তৃণমূলে আসার আগেই সাংসদ পদ থেকে ইস্তফার চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছিলেন লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লাকে। এদিন তৃণমূলে যোগ দিয়ে অর্জুন স্পষ্ট করে দিলেন, তিনি এখনই ব্যারাকপুরের সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিচ্ছেন না। এদিন সাংবাদিকরা স্বাভাবিক ভাবেই অর্জুনকে প্রশ্ন করেছিলেন, কবে সাংসদ পদ ছাড়ছেন? জবাবে তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের টিকিটে জেতা এমন দু’জন সাংসদ আছেন, যাঁরা বিজেপির সঙ্গে সারাক্ষণ রয়েছেন। ওঁরা যেদিন সাংসদ পদ ছেড়ে দেবেন, তার এক ঘণ্টার মধ্যে আমিও ছেড়ে দেব।’

এখন প্রশ্ন হল, ওঁরা কারা? অর্জুন (Arjun Singh) কারও নাম করেননি, কিন্তু বুঝতে অসুবিধা হয়নি, ইঙ্গিত কাদের দিকে। কাঁথি এবং তমলুকে তৃণমূলের টিকিটে জেতা দুই সাংসদ শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দু অধিকারী অনেক দিন হল, কালীঘাটের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়েছেন। গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে তাঁদের সখ্য সর্বজনবিদিত। একুশের ভোটের আগে পূর্ব মেদিনীপুরে অমিত শাহর একটি সভায় পদ্মশিবিরের মঞ্চে সটান হাজির হয়েছিলেন শিশিরবাবু। দিব্যেন্দু সরাসরি গেরুয়া শিবিরের মঞ্চে না গেলেও, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা, প্রধানমন্ত্রী হলদিয়ায় এলে তাঁর অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা করে দেওয়া– এসব করেছেন।

অর্জুন এদিন সেটাকেই নিশানা করতে চেয়েছেন। বোঝাতে চেয়েছেন, ওঁরা যদি তৃণমূলের টিকিটে জিতে বিজেপির সঙ্গে গা লাগিয়ে থাকতে পারেন, তাহলে আমিই বা বিজেপির টিকিটে জিতে তৃণমূলে ফিরতে পারব না কেন। ওঁরা যদি সাংসদ পদ না ছাড়েন, তাহলে আমাকেই বা ছাড়তে হবে কেন।

শনিবারই দ্য ওয়ালে লেখা হয়েছিল, সাংসদ পদ ছাড়া-না ছাড়ার ব্যাপারে অধিকারী পরিবারের দু’জনের সদস্যের কথাই উদাহরণ হিসেবে টানতে পারেন অর্জুন (Arjun Singh)। এদিন হলও তাই।

কে বলে গো এই প্রভাতে নেই তুমি

You might also like