Latest News

Amit Shah: অমিত নিশানায় ফের বাংলা, অনুপ্রবেশ নিয়ে অসম সরকারের প্রশংসা, মমতার প্রশাসনের নিন্দা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এক সপ্তাহ আগে বাংলায় এসে বলছিলেন, অনুপ্রবেশ (Illegal Migration), চোরাচালান আটকাতে বিএসএফের স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতা প্রয়োজন। হুঁশিয়ারির সুরে বলেছিলেন, রাজ্য প্রশাসন যাতে সহযোগিতা করে অচিরেই সে জন্য অনুকূল রাজনৈতিক পরিবেশ বাংলায় ফিরবে।

মঙ্গলবার অসমের মাটিতে দাঁড়িয়ে অনুপ্রবেশ নিয়ে বাংলার বিরুদ্ধে ফের সুর চড়ালেন কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah)। সেখানে অসম সরকারের বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অনুপ্রবেশ আটকাতে অসম সরকার (Assam Government) কেন্দ্রের সঙ্গে সব ধরনের সহযোগিতা করছে। আর অসহযোগিতা করে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার (West Bengal)।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর মুখে অসমের বিজেপি সরকার এবং মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার প্রশংসা স্বাভাবিক। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত হিমন্তের সরকারেরও বর্ষপূর্তি হয়েছে সম্প্রতি। কিন্তু একটি রাজ্যের অনুষ্ঠানে আর একটি প্রদেশের বিরুদ্ধে মুখ খোলা, অনেকেই রাজনৈতিক অসৌজন্যের নজির মনে করছেন।

এক সপ্তাহ আগে বাংলা সফরে আসা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জবাব দিতে মাইক ধরেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাল্টা হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আগুন নিয়ে না খেলার পরামর্শ দেন। কিন্তু তাতে না দমে অনুপ্রবেশ ইস্যুতে তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ বহাল রাখলেন অমিত শাহ। ওই বক্তব্যের অর্থ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রবেশকে মদত করছে।

পর্যালোচনা চলাকালে ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ ধারা কার্যকর বন্ধ থাক, কেন্দ্রকে বলল সুপ্রিম কোর্ট

তৃণমূলের প্রবীন সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে পাল্টা বলেন, সীমান্ত পাহারার দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকারের সংস্থা বিএসএফের। তাদের ব্যর্থতার দায় অমিত শাহ বাংলার সরকারের উপর চাপাতে চাইছেন।

রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, কাশীপুরে বিজেপি কর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে মঙ্গলবারই বঙ্গ বিজেপি জোর ধাক্কা খেয়েছে। মুখ পুড়েছে অমিত শাহেরও। দলের সঙ্গে সুর মিলিয়ে তিনিও ওই মৃত্যুকে রাজনৈতিক খুন বলে উল্লেখ করে সিবিআই তদন্ত দাবি করেছিলেন। আজ হাইকোর্ট ওই ঘটনার তদন্তভার কলকাতা পুলিশকে দিয়েছে। গলায় ফাঁস লেগে অর্জুন চৌরাসিয়া নামে ওই বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রধান বিচারপতি আদালতে জানিয়েছেন।

কাশীপুর কাণ্ডে অমিতের সিবিআই দাবি খারিজ, কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ক্ষমা চান, দাবি তৃণমূলের

অনেকেই মনে করছেন, আদালতের পর্যবেক্ষণে বিজেপির নেতা কর্মীদের চুপসে যাওয়া মনোবল চাঙা করতেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অসমের মাটিতে দাঁড়িয়েও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসনকে নিশানা করতে ছাড়েননি।

You might also like