Latest News

বাংলায় দু’ধরনের রেশন কার্ডের জন্য আধার বাধ্যতামূলক হচ্ছে, বিজ্ঞপ্তি খাদ্য দফতরের

রফিকুল জামাদার

বাংলায় দু’ধরনের রেশন কার্ডের (Ration Card) জন্য বাধ্যতামূলক হচ্ছে আধার কার্ড (Aadhaar card)। সরকারের এই সিদ্ধান্তের কথা আগেই জানা গিয়েছিল। রাজ্যপালের সইয়ের পর এ বার তা নিয়ে গেজেট নোটিফিকেশনও হয়ে গেল।

রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা যোজনা তথা খাদ্য সাথী প্রকল্পের আওতায় দু’ধরনের রেশন কার্ড রয়েছে। যে রেশন কার্ডের মাধ্যমে উপভোক্তারা খাদ্য সাথী প্রকল্প বাবদ ভরতুকি মূল্যে চাল, গম ইত্যাদি পান। সেই দুই রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার সংযুক্তিকরণ বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। যারা ইতিমধ্যে ওই রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড সংযুক্ত করেছে, তাদের সমস্যা হওয়ার কথা নয়। কিন্তু যারা এখনও তা করেনি, তাদের সেটা দ্রুত করে নিতে হবে। ১৭ ফেব্রুয়ারি এই মর্মে গেজেট নোটিফিকেশন হয়েছে। সেই দিন থেকে ৩০ দিনের মধ্যে সংযুক্তিকরণের কাজ সেরে ফেলতে হবে। অর্থাৎ ১৯ মার্চের মধ্যে তা করে ফেলতে হবে।

আরও পড়ুনঃ ভরসার নাম ‘স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড’! পড়ুয়াদের উচ্ছ্বাসে মাতল ইনডোর

যাদের আধার কার্ড বা নম্বর নেই, তারা রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা যোজনার আওতায় ভরতুকি মূল্যে খাদ্যশস্য পেতে চাইলে ৩১ মার্চের মধ্যে আধারের জন্য আবেদন করতে হবে। তার পর তা রেশন কার্ডের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে। তবে ৫ বছর বা তার কম বয়সী শিশুর জন্য আধার বাধ্যতামূলক নয়।

খাদ্য দফতর জানিয়েছে, গেজেট নোটিফিকেশনের দিন থেকে আধার বাধ্যতামূলক হয়ে গেল। তবে এখন যাদের রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার সংযুক্ত নেই তারা আপাতত ভোটার কার্ড বা ড্রাইভিং লাইসেন্স, পোস্ট অফিস বা ব্যাঙ্কের পাস বুক ইত্যাদি পরিচয়পত্র দেখিয়ে প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবে।

প্রশাসনিক সূত্রের মতে, এই ধরণের সরকারি প্রকল্পের ক্ষেত্রে ‘লিকেজ’ একটা বড় চিন্তার বিষয়। অর্থাৎ ভুয়ো রেশন কার্ড দেখিয়ে বা মৃত মানুষের নামে কার্ড ব্যবহার করে অনেকে ভরতুকি মূল্যের খাদ্যশস্য তুলে নিচ্ছে। এতে সরকারের অর্থের অপচয় হচ্ছে। সরকারের লক্ষ্য হল, যে সব মানুষের ভরতুকি মূল্যে খাদ্য প্রয়োজন, তাদের অবশ্যই তা সরবরাহ করা। আর কোনওরকম অপচয় বন্ধ করা। কারণ, একে সরকারের আর্থিক সংকট রয়েছে। তা ছাড়া অপচয় বন্ধ করা গেলে যে সাশ্রয় হবে তা অন্য জনহিতকর প্রকল্প খাতে খরচ করা যাবে। আধার কার্ডের সংযুক্তিকরণ বাধ্যতামূলক হলে অপচয় বন্ধ হবে বলে সরকার আশাবাদী।

You might also like