Latest News

টাকার অভাবে পড়াশোনা বন্ধ! বিষ খেলেন চন্দ্রকোনার ছাত্রী

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পশ্চিম মেদিনীপুর: টাকার অভাবে পড়াশোনা প্রায় বন্ধ হতে বসেছিল। একাধিকবার ব্যাঙ্ক থেকে শুরু করে প্রশাসনের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরেও রাজ্য সরকারের স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড (Students Credit Card) মেলেনি। মুখের উপর ব্যাঙ্ক জানিয়ে দিয়েছিল কার্ড হবে না। পড়াশোনা বন্ধ হওয়ার দুঃখে কোনও উপায় না পেয়ে শেষ অবধি বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন এক ছাত্রী (student)। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোনায় (Chandrakona)।

বর্তমানে বিষ খেয়ে হাসপাতালের বেডে শুয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন সেই মেয়ে। চিকিৎসকরা জানিয়ে দিয়েছেন বাঁচার সম্ভাবনা খুবই কম। তবে প্রাণপণ চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ওই ছাত্রীর পরিবার ও এলাকাবাসীরা বলছেন, স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড না পাওয়ার জন্যই বিষ খেয়ে আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করেছেন ওই ছাত্রী।

চন্দ্রকোনা পুরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের ভেয়েরবাজার এলাকায় বাড়ি ছাত্রীটির। উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করার পর তিনি বেঙ্গালুরুতে একটি নার্সিং কলেজে ভর্তি হন। জানা যায়, ভর্তি হওয়ার সময় কলেজ কর্তৃপক্ষ থেকে জানানো হয় তাঁর পড়াশোনা সম্পূর্ণ করতে সাড়ে তিন লক্ষ টাকা খরচ হবে। কিন্তু বাড়ির অর্থনৈতিক অবস্থা তেমন নয়। তাই হাত পাততে হয় এলাকাবাসীদের কাছে।

অবশেষে সকলের সহযোগিতায় এক লক্ষ টাকা ওঠার পর সেটাই জমা দিয়ে কলেজে ক্লাস শুরু করেন তিনি। এরপর স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডে আবেদন করে তাঁর পরিবার। সবাই ভেবেছিলেন, এই কার্ডের মাধ্যমে পড়াশোনার জন্য লোন মিলবে। কিন্তু সমস্ত প্রয়োজনীয় নথি জমা দিয়ে একাধিকবার ব্যাঙ্কে ঘুরলেও লোন মেলেনি। শেষ অবধি সেই মানসিক অবসাদেই আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করেন ওই ছাত্রী।

ড্রেনের পাশে পড়ে মাথা-কাটা ভ্রূণ! চাঞ্চল্য বহরমপুরে

তাঁর মা জানান, ‘আমার মেয়ে নবান্ন থেকে শুরু করে বিকাশ ভবন অবধি একাধিকবার স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের জন্য ছুটে গিয়েছে। কিন্তু লাভের লাভ হয়নি কিছুই। এমনকি ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষও আমাদের ফিরিয়ে দিয়েছে। আর এদিকে দ্বিতীয় কিস্তির টাকার জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পরীক্ষার আগে, টাকা না দিলে পরীক্ষায় বসতে দেওয়া হবে না।’

সূত্রের খবর, রবিবার রাতে বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ওই ছাত্রী। পরিবারের সদস্যরা দ্রুত তাঁকে চন্দ্রকোনা গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজে স্থানান্তরিত করা হয় মেয়েটিকে। যেখানে সরকার স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড চালু করেছে সেখানে কেন এই ছাত্রী স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড পাবে না, তা নিয়ে বিস্তর প্রশ্ন উঠছে।

You might also like