Latest News

বেহাল নিকাশিতে নরককুণ্ড মেয়রকে নালিশ ঠোকা সেই নাগরিকের এলাকা, সুরাহা কবে? প্রশ্ন স্থানীয়দের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নিকাশি নালা এবং সংলগ্ন এলাকা যেন নরককুণ্ড! সিঁথির মোড় থেকে বিটি রোড ধরে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত। আবর্জনায় বন্ধ নালা। এলাকায় পা দিলেই নাকে রুমাল চাপা দিতে হচ্ছে। বর্ষায় কার্যত নরকযন্ত্রণা ভোগ করতে হয় এলাকাবাসীকে। আশেপাশের আবাসনের গ্যারেজে, লিফটে পর্যন্ত জল ঢুকে যায়।

বিটি রোডের ৫১-এ গণপতি আবাসনের বাসিন্দা দিব্যেন্দু দত্ত বললেন, ‘বছরখানেক আগে মেয়রকে বার দুয়েক অভিযোগ জানিয়েও সমস্যার সুরাহা হয়নি। ফের এই শনিবার ‘টক টু মেয়র’ অনুষ্ঠানে ফোন করে বিষয়টি জানাই। তিনি ব্যবস্থা নেবেন আশ্বাস দিয়েছেন। কাল পরিদর্শনে আসবেন পুর-আধিকারিকরা। পরশু থেকে কাজ শুরু হবে।’

‘টক টু মেয়র’ অনুষ্ঠানে পেশায় ব্যবসায়ী দিব্যেন্দু দত্ত মেয়রকে ফোনে জানিয়েছিলেন, ওই আবাসনের সামনে থেকে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত নিকাশি নালা অবরুদ্ধ হয়ে থাকায় তাঁদের বাড়ি থেকে জল বেরোতে পারছে না। ওই জলের কারণে এলাকায় মশা ও পোকার উপদ্রবও বেড়েছে।

গত বছর দু’বার ‘টক টু মেয়র’ অনুষ্ঠানে এই অভিযোগ জানিয়েও যে সুরাহা হয়নি, সে কথাও মেয়রকে জানান তিনি। সেখানে উপস্থিত ডিজি (সিভিল) পি কে দুয়া এবং ওএসডি কালীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে এ নিয়ে প্রশ্নও করেন মেয়র।

এর পরেই ওএসডি-র উদ্দেশে ক্ষোভ প্রকাশ করে মেয়র বলেন, ‘মেয়রকে অভিযোগ জানিয়েও সেই কাজের সুরাহা না হলে আমি চেয়ারে থাকব না। মনে রাখতে হবে, নাগরিকেরা সরাসরি মেয়রকে ফোন করছেন। কাজ করতে হবে। কাজ বাস্তবায়িত হল কি না, সেটাও নিয়মিত দেখতে হবে।’

রবিবার সেখানে গিয়ে দেখা গেল অন্তত কয়েক বছরের আবর্জনা জমে রয়েছে নালায়। ওপরে জল ভাসছে। নালা উপচে নোংরা জল জমছে বিভিন্ন বাড়ির সামনেও। পাশের কৃষ্ণা আবাসনের বাসিন্দা মনিন্দর সিং বললেন, ‘এই আবাসনে আমরা ১৯ বছর ধরে আছি। সরকারকে সবরকম কর দিই। কিন্তু পরিষেবা পাইনা। বর্ষায় আমাদের লিফটে জল ঢুকে যায়। সাফাইকর্মীরা রাস্তা পরিষ্কার করেনা। যেকারনে অন্য আবর্জনা ও গাছের পাতায় ড্রেন জ্যাম হয়ে আছে।’

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের দুপাশের নালাও স্থির। নোংরাজল জমেই রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা শান্তনু দত্ত বললেন, ‘ড্রেনটা খোলা। যে কারণে নোংরা পরে বন্ধ হয়েছে। প্রচুর পলি জমে আছে। কাউন্সিলরকে জানিয়েছিলাম কোনও কাজ হয়নি। আমাদের গ্যারেজে বারোমাস জল জমে থাকে।’

আশেপাশের আবাসনের লোকজন জানালেন, চার-পাঁচবছর ধরে এই ভোগান্তি হচ্ছে। জল জমে থাকার জন্য মশার খুব উপদ্রব। দুর্গন্ধ তো আছেই। ওই নোংরা জল আবাসনে ঢুকে যায়। আবাসনের তরফে নিজস্ব পাম্প লাগানো হয়েছিল। কিন্তু তাতেও কাজ হচ্ছে না।

দিব্যেন্দু দত্ত বিষয়টিতে আরও বলেন, ‘মেয়র যখন আশ্বাস দিয়েছেন, তখন আশা করছি সমস্যা মিটবে। টক টু মেয়র অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাঁকে সমস্যার কথা জানাতে পেরেছি, এটা একটা অভিনব উদ্যোগ।’

কিন্তু এতদিন ধরে এই সমস্যার সমাধানে কাউন্সিলর কেন কোনও উদ্যোগ নেননি? এই ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর এবং তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন বললেন, ‘এই নালা পিডব্লিউডি-র।

রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে পুরসভা। নালার আশেপাশে বস্তি এলাকা রয়েছে। রয়েছে বহু গ্যারেজ। পুরনো গাড়ির সিট, গ্যারেজের নোংরা, শিশি-বোতল ফেলে ড্রেন বন্ধ হয়েছে। এই সমস্যা বহুদিনের।’

শান্তনু সেন আরও জানালেন, টক টু মেয়রের আগেই তিনি এই সমস্যা মেটাতে উদ্যোগ নিয়েছেন। পিডব্লিউডি-র আধিকারিক ভোলানাথ সাউয়ের সঙ্গে কথা হয়েছে। শুধু নালা পরিষ্কার করলে হবেনা। নালা ঢেকে দিতে হবে।

You might also like