Latest News

গতকালের চেয়ে ৮২ শতাংশ বাড়ল! মুম্বইয়ে নতুন কোভিড সংক্রমণ ২৫১০টি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ওমিক্রন আতঙ্কের (omicron) মধ্যেই দিল্লি, মুম্বইয়ে (mumbai) লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ (covid 19)। মুম্বইয়ে  ৮২ শতাংশ সংক্রমণ বেড়েছে গতকালের  তুলনায়। মঙ্গলবার সংক্রমণ সংখ্যা ছিল ১৩৭৭। বুধবার তা বেড়ে হয়েছে ২৫১০। তার আগের দিন ছিল ৮০৯। ৮ ডিসেম্বর থেকে শুরু করে তিন সপ্তাহে ১৮৮ শতাংশ বেড়েছে সংক্রমণ। পরিস্থিতি পর্যালোচনায় প্রশাসনিক কর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন  মন্ত্রী আদিত্য ঠাকরে (aditya thackeray)। ঠিক হয়েছে, বছরের শেষদিন সব প্রকাশ্যে জনসমাগম হয়, এমন সব জায়গা বন্ধ থাকবে মুম্বইয়ে। নববর্ষ পালনের গাইডলাইন ভঙ্গকারী প্রতিষ্ঠানগুলির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ করা হবে। নিয়ম ভঙ্গকারীদের চিহ্নিত করা হবে সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে। পাশাপাশি পুলিশের ফ্লাইং স্কোয়াডও ঘুরবে। যেসব প্রতিষ্ঠান নিয়ম লঙ্ঘন করবে, তাদের আগামী  কয়েক মাসের জন্য সিল করে দেওয়া হবে। মুম্বই পুরসভা হাসপাতালের পরিকাঠামো বাড়ানোর কথা ভাবছে। চিকিত্সা, অক্সিজেন সরবরাহ সচল রাখা হবে। প্রাপ্তবয়স্ক, বাচ্চা, উভয়েরই ভ্যাকসিনের টিকাকরণে বাড়তি জোর দেওয়া হবে। বর্তমানে হাসপাতালগুলিতে, কোভিড সেন্টারে ৫৪ হাজার শয্যা তৈরি আছে বলে জানিয়েছেন ঠাকরে। বলেছেন, সংক্রমণ বাড়ছে, তবে আতঙ্কিত হবেন না, কিন্তু সকলকে চরম সাবধান থাকতে হবে, ভ্যাকসিন নেওয়া, মাস্ক পরে থাকা সুনিশ্চিত করতে হবে।

একগুচ্ছ ট্যুইটে ঠাকরে তাঁদের পরিকল্পনার রূপরেখা হাজির করেছেন যার মধ্যে জানুয়ারির শুরুতেই ১৫ থেকে ১৮ বছর বয়সিদের প্রস্তাবিত ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচি রয়েছে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় মুম্বইয়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে প্রশাসন যোগাযোগ করবে যাতে ১৫-১৮ বয়সসীমার সব ছেলেমেয়েকে সংগঠিত ভাবে ভ্যাকসিন দেওয়ার প্ল্যান কষে ফেলা যায়। পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্যকর্মী, সামনের সারির কর্মী, প্রবীণ নাগরিকদের তালিকাও বানাচ্ছে যাদের তৃতীয় ডোজের কোভিড ভ্যাকসিন দিতে হবে। নিয়মমতো দ্বিতীয় ডোজের ৯ মাস পর তৃতীয়টি নেওয়ার কথা। বড় বড় কোভিড কেয়ার সেন্টারগুলিকেও সর্বতোভাবে মৌলিক পরিষেবা থেকে শুরু করে মেডিকেল পরিকাঠামো পর্যন্ত পুরো তৈরি থাকতে বলা হয়েছে।

দিল্লিতে বুধবার নতুন করে কোভিড সংক্রমণ হয়েছে ৯২৩টি। পজিটিভিটি রেট লাফিয়ে বেড়ে হয়েছে ১.২৯ শতাংশ। গতকাল সংক্রমণ সংখ্যা ছিল ৪৯৬টি। মোট সংক্রমণ ১৪ লাখ ৪৫ হাজার ১০২। মারা গিয়েছেন ২৫,১০৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সেরে ওঠা রোগীর সংখ্যা ৩৪৪। ডিডিএমএ-র সিদ্ধান্ত, হলুদ অ্যালার্টের আওতায় ঘোষিত কোভিড-বিষয়ক বিধিনিষেধ আপাততঃ বহাল থাকবে।

 

You might also like