Latest News

সারা দেশে ওমিক্রন আক্রান্ত ২০০-র বেশি, সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ দিল্লিতে

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বুধবার ভারতে ওমিক্রন আক্রান্তের (Omicron Infection) সংখ্যা দাঁড়াল ২১৩। দিল্লি ও মহারাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষ কোভিডের ওই ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশে কোভিড পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার জন্য বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, কোভিডের অন্যান্য ভ্যারিয়ান্টের তুলনায় ওমিক্রনের উপসর্গ খুবই মৃদু। এখনও পর্যন্ত বিশ্বে তিনজন ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়বে।

মঙ্গলবার ইজরায়েল সরকার জানিয়েছে, সোমবার বিয়ারশেবা শহরের হাসপাতালে এক ওমিক্রন আক্রান্ত মারা গিয়েছেন। তাঁর বয়স ছিল ষাটের কোঠায়। মঙ্গলবার আমেরিকার টেক্সাসে মারা গিয়েছেন আরও এক ওমিক্রন আক্রান্ত। তাঁর বয়স ছিল পঞ্চাশের কোঠায়। তিনি ভ্যাকসিন নেননি।

ভারতে দিল্লিতেই কোভিডের নতুন ভ্যারিয়ান্টে সংক্রমিতের সংখ্যা সর্বাধিক। সেখানে মোট ৫৭ জন ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। মহারাষ্ট্রে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৪ জন। তেলঙ্গানায় ২৪ জন, কর্নাটকে ১৯ জন, রাজস্থানে ১৮ জন, কেরলে ১৫ জন ও গুজরাতে ১৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। জম্মু-কাশ্মীরে আক্রান্ত হয়েছেন তিনজন। ওড়িশা ও উত্তরপ্রদেশে আক্রান্ত হয়েছেন দু’জন করে। অন্ধ্রপ্রদেশ, চণ্ডীগড়, লাদাখ, তামিলনাড়ু এবং পশ্চিমবঙ্গে একজন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

কেন্দ্রীয় সরকার থেকে রাজ্যগুলিকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, কোভিড সংক্রমণ ঠেকাতে ফের ‘ওয়ার রুম’ চালু করুন। প্রয়োজনে চালু করুন নাইট কার্ফু। সেই সঙ্গে আরও বেশি সংখ্যক মানুষকে টেস্ট করতে বলা হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক থেকে রাজ্যগুলিকে চিঠি দিয়ে বলা হয়েছে, “বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত নিন। কোভিড সম্পর্কে যে তথ্য পাওয়া গিয়েছে, তার বিশ্লেষণ করুন। নতুন ভ্যারিয়ান্টের ছড়িয়ে পড়া রুখতে দ্রুত ব্যবস্থা নিন।” চিঠিতে মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে, ওমিক্রন বাদে ডেল্টা ভ্যারিয়ান্টেও অনেকে আক্রান্ত হচ্ছেন।

বুধবার সকালে জানানো হয়, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩১৭ জন। কোভিড অতিমহামারী শুরু হওয়ার পরে এই নিয়ে দেশে আক্রান্ত হলেন ৩ কোটি ৪৭ লক্ষ ৫৮ হাজার ৪৮১ জন। মঙ্গলবার জানানো হয়েছিল, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৩২৬ জন। তার পরে দেশে কোভিড সংক্রমণ ১৮ শতাংশ বেড়েছে। ভারতে এখন কোভিড অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ৭৮ হাজার ১৯০। গত ৫৭৪ দিনের মধ্যে এদিন অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা সবচেয়ে কম। বুধবার জানানো হয়েছে, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় মারা গিয়েছেন ৩১৮ জন। অতিমহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে এই নিয়ে দেশে মৃত্যু হল ৪ লক্ষ ৭৮ হাজার মানুষের।

You might also like